পূজারাদের জন্য নেট বোলার দ্রাবিড়!

কানপুর : বদলার ম্যাচ। বদলের লড়াই। বিশ্বকাপ-হারের হিসেব টি২০ সিরিজে সম্পন্ন। এবার পালা ওয়ার্ল্ড টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনাল পরাজয়ে ক্ষতে প্রলেপ দেওয়ার পালা। গত জুনে বিরাট ব্রিগেডের স্বপ্নটা ভেঙে চরমার হয়েছিল কিউয়ি প্রাচীরে ধাক্কা খেয়ে।

গ্রিনপার্ক বরাবরের স্পিনারদের স্বর্গভূমি। মাঝের বাইশ গজের সঙ্গে স্টেডিয়ামের নামের মিল খুঁজতে গেলে গোড়াতেই হোঁচট খেতে হবে। সবুজহীন উইকেটের যে পরম্পরা বদলাচ্ছে না ভারত-নিউজিল্যান্ড সিরিজের প্রথম টেস্টেও। এমনকি বুধবার সকালে ভারতীয় দলের নেটে বল হাতে ভেলকি দেখালেন কোচ রাহুল দ্রাবিড় নিজেও।

- Advertisement -

https://twitter.com/BCCI/status/1463456210611359753/video/1

ভারতের কাজটা অবশ্য মোটেই সহজ হচ্ছে না। প্রতিপক্ষ কেন উইলিয়ামসন ব্রিগেডের সঙ্গে থাকছে বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মা, মহম্মদ সামি, জসপ্রীত বুমরাহ, লোকেশ রাহুলদের ছাড়া খেলতে নামার চ্যালেঞ্জ। আক্ষরিক অর্থে দ্বিতীয়সারির দল। একাধিক শূন্যতা রাতারাতি পূরণের পরীক্ষা।

দ্বিতীয়, তৃতীয় নিয়ে ভাবতে অবশ্য নারাজ দ্রাবিড়রা। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে তৃতীয়সারির ভারতীয় দলের মিরাকল ঘটানোর স্মৃতি এখনও বেশ উজ্জ্বল। তবে স্পিন-সর্বস্ব উইকেট বুমেরাং করার মতো অস্ত্র মজুত কিউয়ি শিবিরেও। মিচেল স্যান্টনার, ইশ সোধিদের সঙ্গে তৃতীয় স্পিনার হিসেবে আজাজ প্যাটেল তুরুপের তাস হয়ে উঠতে পারেন।

ওপেনিংয়ে মায়াঙ্ক-শুভমান। মিডলঅর্ডারে চেতেশ্বর পূজারা, আজিঙ্কা রাহানের সঙ্গে শ্রেয়স আইয়ার। অধিনায়ক রাহানে এদিনই জানিয়ে দিয়েছেন, কাল শ্রেয়সের (ভারতের ৩০৩তম ক্রিকেটার হিসেবে) টেস্ট অভিষেক ঘটছে। এখন প্রশ্ন পাঁচ নাকি ছয়, কজন ব্যাটসম্যান নিয়ে নামবে ভারত। তবে তিন স্পিনার ও দুই পেসারের কম্বিনেশনেই সম্ভবত যাচ্ছেন দ্রাবিড়রা। অর্থাৎ, অশ্বীন, জাদেজার সঙ্গে অক্ষর।

রাহানের জন্য ডবল-পরীক্ষা। অধিনায়ক হিসেবে অপরাজিত থাকার রেকর্ড অক্ষুণ্ণ রাখা ও নিজের টলমলে কেরিয়ারকে সুরক্ষিত করা। ইংল্যান্ড সফর জঘন্য কেটেছে। চলতি সিরিজেও ব্যাডপ্যাচ বজায় থাকলে পরবর্তী দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের প্রশ্নচিহ্নটা আরও বড়ো হবে। তবে নেতৃত্ব বরাবরই রাহানের থেকে সেরাটা বের করে এনেছে।

গ্রিনপার্কের ইতিহাস বলছে, শেষবার ভারত এখানে হেরেছে ১৯৮৩। তারপর অপরাজিত। নিউজিল্যান্ড অপরদিকে, গ্রিনপার্কে তিনবার খেলে দুবারই হেরেছে। রেকর্ড, পরিস্থিতি, হোম অ্যাডভান্টেজভারত নিঃসন্দেহে ফেভারিট। রস টেলররাও তা মানছেন। আগামী পাঁচদিনে সেই ফেভারিট তকমার মর্যাদা রাখাই পাখির চোখ দ্রাবিড় ব্রিগেডের।