রেল-রাজ্য বৈঠকের দিনই ধুন্ধুমার বৈদ্যবাটিতে

304

কলকাতা: লোকাল ট্রেন চলাচল নিয়ে সোমবার রাজ্য সরকারে সঙ্গে আলোচনায় বসতে চলেছে রেল। এর মাঝেও ফের স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে সাধারণ যাত্রীরা ওঠা নিয়ে ধুন্ধুমার কাণ্ড হুগলির বৈদ্যবাটিতে।

সোমবার সকালে রেললাইনে গাছের গুঁড়ি ফেলে চলে অবরোধ। অবরোধের জেরে থমকে যায় স্টাফ স্পেশাল ট্রেন। রেলগেট বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘক্ষণ এভাবে বৈদ্যবাটি স্টেশনে অবরোধের জেরে সংলগ্ন জিটি রোডেও যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে রেল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আসে শ্রীরামপুর থানার পুলিশও। তবে কোনও অবস্থাতেই অবরোধ তুলতে নারাজ বিক্ষোভকারীরা। ফলে পরিস্থিতি জটিল হয়ে পড়ে। এর আগেও পান্ডুয়া, চুঁচুড়ায়ও অশান্তি তৈরি হয়েছিল।

- Advertisement -

লোকাল ট্রেন চলাচল নিয়ে এদিন রাজ্য সরকারে সঙ্গে আলোচনায় বসতে চলেছে রেল। সূত্রের খবর, এদিন নবান্নের ওই বৈঠকে থাকবেন মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়াও থাকবেন স্বরাষ্ট্রসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী সহ অন্য আধিকারিকরা। রেলের তরফে থাকবেন পূর্বরেলের অতিরিক্ত জিএম, অপারেশনাল ম্যানেজার। স্পেশাল ট্রেনে চড়তে দেওয়ার দাবিতে শনিবার হাওড়া স্টেশনে তুলকালাম কাণ্ড বাঁধে। ট্রেনে চড়তে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ দেখান বহু যাত্রী। তাঁদের দাবি, রোজগার করতে পেটের টানে ঘর থেকে বেরিয়েছেন। কিন্তু এখন তাঁরা ফিরবেন কিভাবে। কোনওমতে পরিস্থিতি সামাল দেয় রেল পুলিশ। রেলের দাবি, ওই ট্রেন স্টাফ স্পেশাল। সেখানে সাধারণ যাত্রীদের উঠতে দেওয়ার অনুমতি নেই। সেই ঘটনার পরই লোকাল ট্রেন চালাতে চেয়ে রেলকে চিঠি দেয় রাজ্য সরকার। পূর্ব রেলওয়ের জেনারেল ম্যানেজারকে চিঠি দিয়ে স্বরাষ্ট্র দপ্তরের অতিরিক্ত প্রধান সচিব এইচকে দ্বিবেদী জানান, কোভিড নিয়ম মেনে সাধারণ যাত্রীদের সকাল ও দুপুরে ট্রেন চালাতে চায় রাজ্য সরকার। সেই চিঠির জবাবে রেল জানিয়েছে, লকডাউনের শুরু থেকেই করোনা সংক্রমণকে আটকাতে শহরতলির ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিল। কিন্তু এখন ফের কিভাবে শুরু করা যায় তানিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করতে চায় রেল। জানা গিয়েছে, ৩১ অক্টোবর এইনিয়ে রেলকে একটি চিঠি পাঠায় রাজ্য সরকার। তারই পরিপ্রেক্ষিতে এদিন রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা বসতে চলেছে রেল। লকডাউনের শুরু থেকেই পণ্য পরিবহণ সচল রেখেছিল রেল। কিন্তু করোনা সংক্রমণ যাতে না বাড়ে তার জন্য বন্ধ রাখা হয়েছিল লোকাল ট্রেন। এদিকে স্পাশাল ট্রেনে ওঠা নিয়ে বাধার মুখে পড়ছেন যাত্রীরা। এর আগে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হুগলির একাধিক স্টেশনেও রেলের স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে উঠতে গিয়ে বাধার মুখে পড়েছেন যাত্রীরা।