ছাত্র সংসদ দখল করাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়

419

কোচবিহার, ১৭ সেপ্টেম্বরঃ ছাত্র সংসদ দখল করাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়। মঙ্গলবার তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। জানা গিয়েছে, পুলিশ লাঠিচার্জ করলে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের বেশ কয়েকজন সদস্য জখম হন। তাঁদের তুফানগঞ্জ মহকুমা হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে।

গত লোকসভা ভোটের পর তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ে ছাত্র সংগঠন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের হাত থেকে দখল নেয় এবিভিপি। অভিযোগ, আজ তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যরা তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয়ে ছাত্রসংসদ পুনরুদ্ধার করতে গেলে পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়ে। তুফানগঞ্জ থানার এসডিপিও ও ওসির সঙ্গে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যদের ধস্তাধস্তি হয়। উত্তেজিত ছাত্রদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে। পুলিশের লাঠির আঘাতে আহত হন বেশ কয়েকজন তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্য। এই বিষয়ে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের কোচবিহার জেলার সহ-সভাপতি তাপস বর্মন বলেন, আমরা এদিন তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয় ছাত্রসংসদ পুনর্দখল করতে যাই। সেইসময় অধ্যক্ষ্যের প্ররোচনায় অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ এর কর্মীরা বাধা দেন। পুলিশের সঙ্গে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। পুলিশ লাঠিচার্জ করলে আমাদের দু’জন কর্মী আহত হন। এদিকে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তুফানগঞ্জ শহরে বিক্ষিপ্তভাবে আরও তিনটি ঘটনা ঘটে। ওই বিক্ষিপ্ত তিনটি ঘটনায় যুব মোর্চার তুফানগঞ্জ শহর মণ্ডল কমিটির সভাপতি প্রসেনজিৎ বসাক সহ তৃণমূলের ৪ জন আহত হয়েছেন। অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদের কোচবিহার বিভাগ সহ প্রমুখ শমিক নারায়ণ বাগচি বলেন, তৃণমূল রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর, গত তিন বছর ধরে তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালয় কোনো ছাত্র সংসদ নির্বাচন হয়নি। এতদিন জোর করে ছাত্র সংসদের ক্ষমতা দখল করে রেখেছিল তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। আমরা তুফানগঞ্জ মহাবিদ্যালযয়ের ছাত্র সংসদ দখল করে রাখিনি। তবে আমাদের সংগঠন রয়েছে। সংগঠনের কর্মীরা সংগঠনের কাজকর্ম করে থাকেন।

- Advertisement -