অর্জুনের প্রতিবাদ মিছিলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা

611
ফাইল ছবি

কলকাতা ও ব্যারাকপুর: বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের ডাকা প্রতিবাদ বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে রবিবার উত্তাল হয়ে উঠল উত্তর ২৪ পরগনার দূর্গানগর। কয়েকদিন আগে ওই এলাকায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের একটি চা-চক্র বসানোর কথা ছিল। কিন্তু পুলিশের পক্ষ থেকে সেই চা-চক্রের অনুমতি দেওয়া হয়নি। ফলে সেখানকার চা-চক্র অনুষ্ঠানটি বাতিল হয়ে যায়।

এরই প্রতিবাদে এদিন দূর্গানগর এলাকায় একটি প্রতিবাদ মিছিলে ডাক দেন বিজেপির ব্যারাকপুরের সংসদ অর্জুন সিং। প্রতিবাদ মিছিলের জন্য কয়েকশো বিজেপি কর্মী ও সমর্থক দুর্গানগরে জমায়েত হলে পুলিশ তাঁদের বাধা দেয় ও মিছিল বন্ধ করে দেয়। এই নিয়ে অবশ্য পুলিশ ও বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মধ্যে ধস্তাধস্তি বেঁধে যায়। তবে অর্জুনবাবুর হস্তক্ষেপে সেখানে বড় ধরনের কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

- Advertisement -

অর্জুনবাবু বলেন, গণতান্ত্রিক আন্দোলনকে দমানোর অপপ্রয়াস চালাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। যে করোনা সংক্রমনের অজুহাত দেওয়া হচ্ছে, তা শুধু বিজেপি কর্মীরা মিটিং-মিছিল করলেই হবে মনে হচ্ছে। তৃণমূলীরা সামাজিক দূরত্ব না মেনে একাধিক মিটিং-মিছিল করলেও তা হয়ত ছড়াবে না। রাজ্যের পুলিশ ও প্রশাসনের এ ধরনের মনোভাবের তীব্র নিন্দাও করেন তিনি। তাঁর মতে, বিজেপি আতঙ্কে আতঙ্কিত তৃণমূলীরা সর্বত্রই বিজেপির ভূত দেখছে। তাই তাদের কোনও মিটিং মিছিল ও সমাবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।

অপরদিকে এদিন দুপুরে কলকাতা চিত্তরঞ্জন এভিনিউ উপর অবস্থিত বিবেকানন্দ রোডের কাছে একটি অ্যাম্বুলেন্স উদ্বোধন করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়ায়। বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং অ্যাম্বুলেন্সটি উদ্বোধন করতে এলে তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা তাঁকে কালো পতাকা দেখান। গো-ব্যাক ধ্বনিও দেন। তবে অর্জুনবাবু ও তাঁর সাঙ্গপাঙ্গরা তৃণমূলের বিক্ষোভকে আমল না দিয়েই তাঁদের কার্যক্রম শেষ করেন।

স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী শশী পাঁজা অভিযোগ করেন, অর্জুনবাবু বহিরাগতদের নিয়ে এসে একটি পুরনো অ্যাম্বুলেন্সকে উদ্বোধন করছেন। একটা অ্যাম্বুলেন্স উদ্বোধনের নামে দুঘণ্টা ধরে ওই এলাকায় কয়েকশো বহিরাগত এনে যে তাণ্ডব চালিয়েছেন বিজেপি সাংসদ, তারই প্রতিবাদ করেছেন দলের নেতা ও কর্মীরা। এদিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চিত্তরঞ্জন এভিনিউ এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে গিয়ে অবস্থার সামাল দেয়।