মোটা টাকা অ্যাম্বুল্যান্স ভাড়া নেওয়া বন্ধে কড়া পদক্ষেপ প্রশাসনের

90

বর্ধমান: করোনা আক্রান্ত রোগীদের পরিষেবা দেওয়ার জন্য মোটা টাকা ভাড়ার দাবি করছে অ্যাম্বুল্যান্স চালকরা। এমন অভিযোগ পেয়ে সোমবার কড়া পদক্ষেপ নিল পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর ব্লক প্রশাসন। অ্যাম্বুল্যান্স চালকদের এদিন স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল অজুহাত দেখিয়ে কোনও রোগীকে ফেরানো যাবে না। এমনকি সাধারণ রোগী হোক কিংবা করোনা আক্রান্ত রোগী সবাইকে ন্যায্য ভাড়ায় পরিষেবা দিতে হবে। এর অন্যথা হলে অ্যাম্বুল্যান্স চালকদের বিরুদ্ধে প্রশাসন আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে। দেরিতে হলেও প্রশাসন এমন পদক্ষেপ নেওয়ায় সাধুবাদ জানিয়েছেন জামালপুরের বাসিন্দারা।

বিধায়ক ও সাংসদদের দেওয়া বেশ কিছু অ্যাম্বুল্যান্স রয়েছে জামালপুর ব্লকে। সেই অ্যাম্বুল্যান্সগুলি বিভিন্ন ক্লাব ও প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে। তবে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত সেসব অ্যাম্বুল্যান্সগুলি জামালপুর ব্লক হাসপাতালে দাঁড়িয়ে থাকে। যদিও অ্যাম্বুল্যান্সে কোনও রোগীকে জামালপুর হাসপাতাল থেকে বর্ধমান হাসপাতাল কিংবা কলকাতার হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ভাড়া কত হবে তা প্রশাসনের তরফে নির্ধারিত করে দেওয়া হয়নি। এছাড়াও রোগীর স্বার্থে অ্যাম্বুল্যান্সগুলি পরিচালনার ব্যাপারেও কোনও পরিচালক মণ্ডলীও এখনও গঠন করা হয়নি। অভিযোগ, সেই সুযোগ নিয়ে অ্যাম্বুল্যান্স চালকরা রোগীর পরিবারের থেকে ইচ্ছামতো ভাড়া চায়। এমনকি তাঁরা নিজেদের মর্জি মতো ভাড়া খাটতো। যার জন্য রোগীদের ভোগান্তির শিকার হতে হয়।

- Advertisement -

জামালপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মেহেমুদ খাঁন ও কর্মাধ্যক্ষ ভূতনাথ মালিক এদিন ব্লক অফিস থেকে জামালপুর ব্লক হাসপাতালে পৌঁছে যান। মেহেমুদ খাঁন বলেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরে তিনি হাসপাতালের অ্যাম্বুল্যান্স চালকদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ পাচ্ছিলেন। এদিন তিনি জানতে পারেন পরিষেবা দেওয়ার জন্য এক করোনা আক্রান্ত রোগীর কাছেও অতিরিক্ত ভড়া চাওয়া হয়। সাংসদ, বিধায়কদের দেওয়া অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ে এই করোনা কালে অ্যাম্বুল্যান্স চালকরা রোগীদের শোষণ করবে এটা মেনে নেওয়া যায়না। কোনওভাবেই এসব বরদাস্ত করা হবে না। অ্যাম্বুল্যান্স পরিচালনার ব্যাপারেও পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে জানান পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। হাসপাতালে থাকা অ্যাম্বুল্যান্সের চালকরা অবশ্য এই অভিযোগের বিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন।’

বিএমওএইচ ঋত্বিক ঘোষ বলেন, ‘অ্যাম্বুল্যান্স চালকরা বেশি ভাড়া নিচ্ছে সেটা আমার জানা ছিল না। করোনা আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যেই ১০২ এ পরিষেবা দেওয়া হয়। পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি এদিন অভিযোগ পেয়ে হাসপাতালের অ্যাম্বুল্যান্স চালকদের অতিরিক্ত ভাড়া না নেওয়ার নির্দেশ দিয়ে গিয়েছেন। সভাপতির নির্দেশ মতো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে রেট চার্ট তৈরি চলছে। সেই মতোই অ্যাম্বুল্যান্সের ভাড়া নিতে হবে। রেট চার্টে নির্ধারিত করে দেওয়া ভাড়ার অতিরিক্ত নেওয়ার অভিযোগ পেলে এবার থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’