পলাশবাড়িতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধিতে উদ্বিগ্ন প্রশাসন

391

পলাশবাড়ি: আলিপুরদুয়ার ১ ব্লকের পলাশবাড়িতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির জেরে মঙ্গলবার বহু মানুষের লালা নমুনা সংগ্রহ করল স্বাস্থ্য দপ্তর। স্বাস্থ্য কেন্দ্র ও পঞ্চায়েত দপ্তরের মোট ১২৬ জনের লালারস সংগ্রহ করল স্বাস্থ্য দপ্তর। স্যানিটাইজ করা হল সোনাপুর পুলিশ ফাঁড়ি।

উল্লেখ্য, সোমবার রাতে পলাশবাড়ির বাসিন্দা দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ারের করোনার পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তার দু’দিন আগে এখানকার এক পুলিশকর্মীও করোনায় আক্রান্ত হন। অভিযোগ,এই আক্রান্তরা এলাকায় ঘোরাফেরা করেন। এলাকার ব্যবসায়ী, তৃণমূল কংগ্রেসের নেতা, জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই প্রাথমিকভাবে আক্রান্তদের সংস্পর্শে এসেছেন বলে জানা গিয়েছে। এ কারণে তড়িঘড়ি মঙ্গলবার দুপুরে শিলবাড়িহাট প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে প্রথমে চিকিৎসক,নার্স,স্টাফ ও আশাকর্মীদের লালা নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান প্রসেঞ্জিৎ দত্তেরও লালা নমুনা নেওয়া হয়। তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব কাঁঠালবাড়ি অঞ্চল সভাপতি নিরঞ্জন রায়ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে গিয়ে লালা নমুনা দিয়ে আসেন। বিকেলে একইভাবে পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে এসে স্বাস্থ্যকর্মীরা লালা নমুনা সংগ্রহ করেন। পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সৌরভ পাল সহ অন্যান্য জনপ্রতিনিধি ও অফিসকর্মীদের লালা নমুনা নেওয়া হয়।

- Advertisement -

উপপ্রধান সৌরভ পাল বলেন, ‘স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তর মিলে মোট ১২৬ জনের লালার নমুনা নমুনা নেওয়া হয়। হঠাৎ করে এই এলাকায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় কিছুটা আতঙ্ক ছড়িয়েছে।’ এদিকে দু’জন সিভিক ভলান্টিয়ার সোনাপুর ফাঁড়ির অধীন কর্মরত থাকায় পুলিশ মহলেও চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। এজন্য এদিন সোনাপুর ফাঁড়ি চত্বরে স্যানিটাইজ করা হয়েছে।