কুচলিবাড়িতে নাবালিকার বিয়ে আটকাল প্রশাসন

110

মেখলিগঞ্জঃ  মেখলিগঞ্জের কুচলিবাড়িতে নাবালিকার বিয়ে আটকাল প্রশাসন। চতুর্থ শ্রেণীর এক ছাত্রীর বিয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করে তার বাড়ির লোক। নাবালিকার বাড়ি কুচলিবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৯১ অন্দরন কুচলিবাড়ি এলাকায়। গোপন সুত্রে খবর পেয়ে ওই নাবালিকার বাড়িতে যান সিনিয়র প্রজেক্ট কো-অর্ডিনেটর সঞ্চালি বিশ্বাস, কুচলিবাড়ি থানার মেজোবাবু সঞ্জয় সরকার ও জেলা পরিষদ সদস্যা ফুলতি রায়। নাবালিকার পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা চলে। ১৮ বছরেরে আগে মেয়ের বিয়ে দেবেন না এমন লিখে মুচলেকা জমা দেয় নাবালিকার বাবা। তিনি বলেন, দফারিদ্রতার কারনেই ভুলবশত মেয়ের বিয়ে ঠিক করেছিলাম।

বাল্য বিবাহ রুখতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে লাগাতার প্রচার চালানো হয় বলে জানান মেখলিগঞ্জের বিডিও অরুণ রঞ্জন সামন্ত। তিনি বলেন,’প্রশাসনের লাগাতার প্রচারে আগের থেকে অনেকটা কমে গেছে বাল্য বিবাহ। যদিও সচেতনতার অভাবে দুই এক জায়গায় নাবালিকার বিয়ে হচ্ছে। তবে আমরা খবর পেলেই সেই বিয়ে রুখে দিচ্ছি।’  তিনি আরও বলেন,’কুচলিবাড়ির যে নাবালিকার বিয়ে বন্ধ করা হল। সে যাতে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে তা আমরা দেখবো।’

- Advertisement -

এনিয়ে জেলা পরিষদ সদস্যা ফুলতি রায় বলেন,’বর্তমানে মেয়েদের পড়াশোনার প্রতি গুরুত্ব দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মেয়েদের পড়াশোনার জন্য কন্যাশ্রী প্রকল্প চালু করেছেন। তাই দারিদ্রতা কারনে পড়াশোনা করাতে পারছে না এটা মানা যায় না। তারপরও যদিও সমস্যা হয় পড়াশোনা করতে আমরা সাহায্য করবো।’