মাদক বিক্রির অভিযোগে পুলিশের জালে বিজেপি নেতার ভাই

163

শিলিগুড়ি: অবৈধভাবে মাদক দ্রব্য বিক্রির অভিযোগে বৃহস্পতিবার পুলিশের জালে ধরা পড়ল বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার সম্পাক দিলীপ বাড়ই-এর ভাই প্রদীপ বাড়ই। এদিন দিলীপ বাড়ই-এর বাড়ির নীচে দোকান থেকে নকশালবাড়ি থানার পুলিশ, নকশালবাড়ির বিডিও এবং শিলিগুড়ির ড্রাগ ইন্সপেক্টর যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে নিষিদ্ধ ওষুধ উদ্ধার করেন। বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে বিজেপির প্রথম সারির নেতার বাড়ি থেকে মাদক দ্রব্য উদ্ধার হওয়াতে এলাকায় রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়িয়েছে।

এদিন নেপালের ঝাপা জেলার বাসিন্দা নরেন্দ্র রাই(৩৫) এবং প্রজ্জল পাওদা(৩২) নামে দুই যুবককে সন্দেহজনকভাবে বাজার এলাকা থেকে আটক করে নকশালবাড়ি থানার পুলিশ। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে স্থানীয় এক দোকানে মাদক হস্তান্তরের কথা স্বীকার করে তারা। এরপরেই ওই দুই যুবককে সেই দোকানে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু দোকানটি বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার সম্পাদক দিলীপ বাড়ই-এর বাড়ির নীচে থাকায় কেউই তল্লাশি চালানোর সাহস পায়নি। শেষে নকশালবাড়ির বিডিও অরিন্দম মণ্ডল ঘটনাস্থলে পৌঁছোন। একইসঙ্গে পৌঁছোন শিলিগুড়ি সার্কেলের ড্রাগ ইন্সপেক্টর সুরজিৎ বাগ। এরপরেই পুলিশের উপস্থিতিতে শুরু হয় তল্লাশি। উদ্ধার হয় নিষিদ্ধ ৪৬ পাতা উইন্সপাসমো ফোর্ট ক্যাপসুল, ২৮ পাতা নাইট্রোজিপাম ট্যাবলেট এবং ১৬ বোতল কাফ সিরাপ। এরপরেই দিলীপ বাড়ই-এর ভাই প্রদীপ বাড়ইকে পুলিশ আটক করে। শিলিগুড়ির ড্রাগ ইন্সপেক্টরের মতে এগুলি অবৈধভাবে বিক্রি করা হচ্ছে। যদিও পুরো বিষয়টি নিয়ে নকশালবাড়ির বিডিও অরিন্দম মণ্ডল কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

- Advertisement -

নকশালবাড়ি থানার ওসি ইফতিকার উল হাসান জানান, হাতেনাতে ধরার পর নেপালের দুই বাসিন্দা এবং প্রদীপ বাড়ইকে এনডিপিএস অ্যাক্টে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আগামীকাল তাদের শিলিগুড়ি মহকুমা আদালতে পেশ করা হবে। যদিও বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার সম্পাদক দিলীপ বাড়ই জানান, দোকানটি আদতেই তাঁর নয়। তাঁর ভাই দোকানটি চালান। ভাইয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন তাঁর কোনও সম্পর্ক নেই।