সেতু ভেঙে ঝুলে থাকল ইট বোঝাই লরি, ক্ষুব্ধ গলসির বাসিন্দারা

74

বর্ধমান: ভগ্নপ্রায় সেতুর উপর দিয়েই বালি কারবারিরা রাতের অন্ধকারে ওভারলোড বালি বোঝাই লরি পারাপার করত। তাতে আরও দুর্বল হয়ে পড়ে পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে দামোদরের সেচ ক্যানেলের উপরে থাকা সেতুটি। বুধবার ইট বোঝাই একটি লরি সেই সেতুর উপর দিয়ে যাওয়ার সময়ে ভেঙে পড়ল সেতুর একাংশ। সেতুতেই ঝুলে থাকল ইট বোঝাই লরিটি। সেতু ভেঙে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল গলসির উড়ো দাদপুর সড়কপথের সঙ্গে যোগাযোগ। প্রায় ১০ কিমি পথ ঘুরে নৌকায় সেচ খাল পার হয়ে অথবা ১২ কিমি পথ ঘুরে এখন উড়ো দাদপুর সড়কে পৌঁছোতে হচ্ছে ১০-১২টি গ্রামের বাসিন্দাদের। এমন পরিস্থিতি তৈরি হওয়ায় ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা।

গলসির উড়ো মোড়ে জাতীয় সড়ক থেকে ২ কিমি দূরে দাদপুর যাওয়ার পথে ডিভিসির সেচ খালের উপরে সেতুটি অবস্থিত। সেতুটি দীর্ঘদিন ধরে ভগ্ন অবস্থায় ছিল। কয়েক বছর আগে সেতুটির একদিক বসে যায়। তখন সেতুর মুখে শুধুমাত্র একটি লোহার প্লেট বসিয়েই দায় সারে সেচদপ্তর। কিন্তু সেতুর রক্ষণাবেক্ষণের ব্যাপারে তেমন কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি বলে এলাকার বাসিন্দাদের অভিযোগ। এই অবস্থায় উড়ো মোড়ে পৌঁছোনর জন্য এলাকার ১০-১২টি গ্রামের মানুষ টোটো, সাইকেল ও মোটর সাইকেলে চেপে কোনওরকমে সেতু পার হতেন। কিন্তু অবৈধ বালির কারবারিরা রাতের অন্ধকারে সেতুর উপর দিয়েই ওভারলোড বালির লরি পার করাতেন।

- Advertisement -

এলাকার বাসিন্দা শুভেন্দু গুপ্ত জানান, সেতু ভেঙে পড়ায় এখন প্রায় ১২ কিমি পথ ঘুরে গলসির দরবারপুর ও সাঁকো হয়ে ১০-১২টি গ্রামের বাসিন্দাদের যেতে হবে উড়ো মোড়ে। তাই দুর্ভোগের হাত থেকে রেহাই পেতে এলাকার বাসিন্দারা এদিন দ্রুত সেতু মেরামতির দাবিতে স্বোচ্চার হয়েছেন। সেতুর একাংশ এদিন ভেঙে পড়ার জন্য গলসির বিজেপি নেতা কর্মীরা তৃণমূল আশ্রিত বালি কারবারীদের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছেন।

স্থানীয় বিজপি কর্মী সম্রাট সোম অভিযোগে বলেন, ‘এলাকার তৃণমূল আশ্রিত কিছু ব্যক্তি অবৈধ বালি কারবারে যুক্ত। তাঁরা রাতের অন্ধকারে ওভারলোড বালি বোঝাই বহু লরি ভগ্নপ্রায় সেতুর উপর দিয়েই পার করাত। তার জেরেই সেতুর অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায়। এদিন সকালে ইট বোঝাই একটি লরি সেতুর উপর দিয়ে যাওয়ার সময়ে সেতুর একাংশ ভেঙে যাওয়ায় সেতু দিয়ে যাতাযাত একেবারেই বন্ধ হয়ে গেল। এরফলে এলাকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। দুর্ভোগের অবসান ঘটাতে অবিলম্বে বিকল্প সেতুর ব্যবস্থা করা না হলে বৃহত্তর আন্দোলন শুরু হবে বলে গলসির বিজেপি নেতৃত্ব হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।’ গলসি-১ ব্লকের বিডিও সঞ্জীব সেন বলেন, ‘সেতু ভেঙে পড়ার খবর পেয়েই তিনি সেচদপ্তরের সঙ্গে কথা বলেছেন। সেচদপ্তর থেকে রিপোর্ট পাওয়ার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’