কয়লা পাচার কাণ্ডে এবার খনিতে নেমে তদন্ত করতে চাইছে সিবিআই

105

আসানসোল: নদীর নিচে থাকা কয়লাকেও রেহাই দেয়নি কয়লা মাফিয়ারা! বেপরোয়া, অবৈঞ্জানিকভাবে কয়লা কেটে নেওয়ায় নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়েছে। বেড়েছে গভীরতাও। প্রাণের ঝুঁকি থাকা সত্বেও কয়লা মাফিয়ারা এইভাবেই কয়লা তুলে অবাধে তা পাচার করেছে। মঙ্গলবার ইসিএলের বিভিন্ন কোলিয়ারি এলাকায় তদন্ত করতে এসে খনি বিশেষজ্ঞ দলের কাছ থেকে এসব শুনলেন সিবিআইয়ের ডিআইজি অখিলেশ সিং।

জানা গিয়েছে, বেআইনি কয়লা পাচারের মামলায় সিবিআইয়ের তদন্তে মূল লক্ষ্য ইসিএলের কেন্দা, কুনুস্তোরিয়া ও কাজোড়া এরিয়া। এই কয়লা কাণ্ডের কিনারা করতেই সোমবারের পরের মঙ্গলবারও কয়লাখনিতে পৌঁছোল সিবিআইয়ের দল। সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় কয়লা মন্ত্রকের খনি বিশেষজ্ঞরা। খনি বিশেষজ্ঞ ও সিবিআইয়ের দুর্নীতি দমন শাখার আধিকারিকরা আগামী দিনে কয়লা খনিতে নেমেও তদন্ত করবেন বলে গোয়েন্দা সূত্রের খবর।

- Advertisement -

পশ্চিম বর্ধমান জেলার ইসিএলের লিজ হোল্ড এলাকায় থাকা কয়লাখনি থেকে ঠিক কত পরিমাণ কয়লা চুরি হয়েছে তা জানতে এবার খনিতে নেমে তদন্ত করতে চাইছে সিবিআই। প্রথম দফায় সোমবার পশ্চিম বর্ধমানের অণ্ডাল থানা এলাকার কাজোরা এরিয়ার হরিশপুর, লছিপুর ও টপলাইন এলাকায় ৩০ জনের একটি দল পরিদর্শনে গিয়ো তদন্ত চালায়। মঙ্গলবারও সিবিআইয়ের ডিআইজির নেতৃত্বে থাকা দলটি অন্ডাল, জামুড়িয়া ও রানিগঞ্জর বেশ কয়েকটি খনি এলাকায় যায়। সেসময় খনি বিশেষজ্ঞরা এলাকার সিঙ্গারন নদীর পাশে দাঁড়িয়ে সিবিআইয়ের ডিআইজিকে জানান, এই নদীর নিচে থাকা কয়লাও তুলে নেওয়া হয়েছে। তখন ডিআইজি অখিলেশ সিং জানতে চান, নদীতে জল আছে। তাহলে কি করে তা হয়েছে? তখন খনি বিশেষজ্ঞরা বলেন, তখন জল কম ছিল। পরে নদীর গভীরতা বেড়ে যায় ও গতিপথ পরিবর্তন হয়েছে। ডিআইজিকে তাঁরা বলেন, নদী ও তার আশপাশের জমির মাপ করা হয়ে গেছে।

তদন্তের স্বার্থে ঝাড়খণ্ডের রাঁচি থেকে আসা খনি বিশেষজ্ঞ দলটি সিবিআইয়ের সঙ্গে খনিতে নেমে বিশেষ পদ্ধতিতে মাপজোখ করবে বলেই জানা গিয়েছে। কত পরিমাণ কয়লা বেআইনিভাবে খনি থেকে তোলা হয়েছে তার একটা হিসাব পেতে চাইছেন তদন্তকারীরা। তাদের মত, এই সমীক্ষার মাধ্যমে জানা যাবে ঠিক কত দিন ধরে চুরি হয়েছে কয়লা।

সিবিআইয়ের বক্তব্য, এই মামলার তদন্তের জন্য এই সমীক্ষা হওয়াটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরী। কারণ, কত পরিমাণ কয়লা চুরি হয়েছে তার হিসেব পেলেই জানা যাবে কত কোটি টাকার কারবার রয়েছে কয়লা মাফিয়াদের। সমীক্ষায় উঠে আসা তথ্য সিবিআই জানাবে আদালতকেও।

এদিন সিবিআইয়ের ডিআইজি অখিলেশ সিং, তদন্ত নিয়ে বিস্তারিত কিছু বলতে চাননি। তিনি জানান, তদন্ত করতে এসেছি। তা চলছে।