জেলায় জেলায় পৌঁছোলো কেন্দ্রীয় বাহিনী, চলবে রুটমার্চ

127

নিউজ ব্যুরো: এখনও প্রকাশ হয়নি একুশের বিধানসভা ভোটের নির্ঘণ্ট। তার আগেই জেলায় জেলায় পৌঁছোতে শুরু করেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী। ভোটের আবহে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে নিয়ম করে চলবে রুটমার্চ।

বৃহস্পতিবার বিকেল নাগাদ ফালাকাটা ব্লকের জটেশ্বর বাজার এলাকায় পৌঁছোয় ১ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। আগামীকাল থেকে শুরু হবে রুটমার্চ। নির্বাচনের আগ মূহূর্ত পর্যন্ত ১ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী জটেশ্বর তো বটেই ফালাকাটা, মাদারীহাট, বীরপাড়া, জায়গাও থানা এলাকার বিভিন্ন বুথে বুথে টহলদারি চালাবেন। তবে এই রগট মার্চে সেনা বাহিনীর সঙ্গে রাজ্য পুলিশও থাকবে কিনা তা এখনও স্পষ্ট নয়। অন্যদিকে, এদনিই গঙ্গারামপুরে পৌছোয় এক কেন্দ্রীয় বাহিনী। আগামীকাল থেকে গঙ্গারামপুর সহ বংশীহারী,হরিরামপুর, কুশমন্ডি,ও তপনের বেশ কিছু এলাকা রুট মার্চ শুরু করবেন বলেই খবর।

- Advertisement -

কোচবিহার-২ ব্লকের খাগড়াবাড়িতে পৌঁছোলো এক কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। বাকি দুই কোম্পানি দিনহাটা ও মাথাভাঙ্গায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বিধানসভা নির্বাচনের জন্য প্রথম পর্যায়ে কোচবিহার জেলায় তিন কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন থাকবে। পরবর্তীতে নির্বাচনের আগেই আরও কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানরা পৌঁছোবেন। আগামীকাল থেকে নিয়মিত বিভিন্ন এলাকায় রুট মার্চ করবেন বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে মালদা জেলাতেও পৌঁছোলো কেন্দ্রীয় বাহিনী। এদিনই শুরু হয় রুটমার্চ। বামনগোলা ব্লকের আশ্রমপুর, মরাঘাটি, খাকারিপাড়া, শান্তিপাড়া, সালালপুর, কাংসা সহ পাকুয়াহাটের বিভিন্ন এলাকায় রুটমার্চ করে কেন্দ্রীয় বাহিনী। রুট মার্চে চলাকালে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সাথে নিয়ে পুলিশ অফিসাররা সাধারণ মানুষজনের সঙ্গে কথা বলেন। নির্ভয়ে ভোট দেওয়ার আশ্বাস দেন। পাশাপাশি, পুরাতন মালদার মহিষবাথানি অঞ্চলের আদিনা হিমঘর, বেলাহার, গোয়ালপাড়া এবং সঞ্জইল বিভিন্ন এলাকায় কেন্দ্রীয় আধাসামরিক বাহিনী রুটমার্চ করে। ভোটারদের উদ্দেশ্যে জওয়ানেরা জানান, কোনও রাজনৈতিক দলের নেতাদের দ্বারা প্রভাবিত না হওয়ার কথা। ভোটারদের প্রতি আরও বলা হয় কোনও রাজনৈতিক দল যদি কোনও ধরনের ভীতি প্রদর্শন করে। সেক্ষেত্রে বিষয়টি যেন তৎক্ষণাৎ পুলিশ প্রশাসন ও ব্লক প্রশাসনকে জানানো হয়। বিশেষ সূত্রে জানা যায় স্পর্শকাতর বুথগুলিতে রুটমার্চ শুরু হয়েছে।

উত্তরের পাশাপাশি দক্ষিণেও পৌঁছোলো কেন্দ্রীয় বাহিনী। পশ্চিম বর্ধমান জেলা বা আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেট এলাকায় পৌঁছোলো ৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। থানা এলাকার গুরুত্ব বুঝে প্রতি থানায় এক প্লেটুন (২৪ জন) থেকে দেড় প্লেটুন (৩৬ জন) কেন্দ্রীয় বাহিনী দেওয়া হয়েছে। এদিন বিকেলে প্রথম কুলটি শহরে কেন্দ্রীয় বাহিনী রুট মার্চ করে। কুলটি থানার আইসি অসীম মজুমদারের নেতৃত্বে কুলটির রানিতলা, লালবাজার কেন্দুয়া মোড় ও নিউরোডে কেন্দ্রীয় বাহিনী রুট মার্চ চলে। পরে আসানসোল দক্ষিণ থানার আসানসোল শহরে কেন্দ্রীয় বাহিনী রুট মার্চ চলে। আসানসোল দক্ষিণ থানায় আইসি অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে আসানসোলের জিটি রোডের উষাগ্রামের বিবি কলেজের সামনে থেকে কেন্দ্রীয় বাহিনীর রুট মার্চ শুরু হয়। বেশ কিছুক্ষুন আশপাশের এলাকায় এই রুট মার্চ চলে। পর্যায়ক্রমে আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটের অন্যান্য থানা এলাকায় এই রুট মার্চ হবে।

মূলত এরিয়া ডোমিনেশান ও ভোটারদের মধ্যে ভোটের আগে আস্থা আনতে নির্বাচন কমিশন আগে থেকে বিভিন্ন থানা এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠিয়েছে।