রাজ্যপালের আধাসেনা নামানোর পরামর্শে বিরক্ত মুখ্যমন্ত্রী

270

কলকাতা : লকডাউন পুরোপুরি কার্যকর করতে রাজ্যের পুলিশ পুরোপুরি ব্যর্থ বলে মনে করেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। বরং লকডাউন কার্যকর করার জন্য তিনি আধা সেনা নামানোর প্রয়োজনীয়তা খতিয়ে দেখতে পরামর্শ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। যদিও এককথায় সেই প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যপালের নাম উল্লেখ না করলেও এই পরামর্শে তিনি বিরক্তিই প্রকাশ করেছেন।

বুধবার নবান্নে সাংবাদিক বৈঠকে বিরূপ সমালোচনা প্রসঙ্গে মন্তব্য করতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এখন সকলেরই উচিত সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করা। একসঙ্গে কাজ করা। তা না করে কেউ কেউ আধা সামরিক নামানোর কথা বলছেন। আধাসামরিক বাহিনীর কী দরকার। এদিন সকালে আসলে বিতর্ক উসকে দেন রাজ্যপালই। তিনি টুইটে বলেন, লকডাউন কার্যকর করার সব নিয়মকানুন মেনে চলতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশে তিনি বলেন, রাজ্যের পুলিশ ও প্রশাসন সামাজিক দূরত্ব পুরোপুরি বজায় রাখার ব্যাপারে ব্যর্থ। তারা ধর্মীয় জমায়েত রুখতেও ব্যর্থ। এই পরিস্থিতিতে তাঁর পরামর্শ, লকডাউনকে সফল করতেই হবে। কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী নামানোর কথা ভাবুক।

- Advertisement -

মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লকডাউনকে সফল করার ওপরে জোর দেন। তার আগে কেন্দ্রীয় সরকার চিঠি দিয়ে এ রাজ্যে লকডাউন ঠিকমতো কার্যকর না হওয়ায় তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছিল। অ্যাডভাইসরি পাঠিয়ে তারা কলকাতা, মুর্শিদাবাদ ও শিলিগুড়ির বিভিন্ন এলাকায় কীভাবে লকডাউন অমান্য হচ্ছে, তার উল্লেখ করেছিল। এদিন রাজ্যপাল আবার টুইটে সবাইকে লকডাউন কার্যকর করার ব্যাপারে একযোগে কাজ করার পরামর্শ দেন মুখ্যমন্ত্রীকে।

রাজ্য পুলিশ অবশ্য বিভিন্ন এলাকায় কড়াকড়ি করতে শুরু করেছে। লকডাউন অমান্য করার জন্য ভারতীয় দণ্ডবিধির ১৮৮ ধারায মামলাও রুজু হচ্ছে। জামিনযোগ্য এই ধারায় আইন অমান্যকারীদের এক মাসের জেলও হতে পারে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হেলমেটের চেয়ে বাইক আরোহীদের ক্ষেত্রে পুলিশ বেশি করে দেখছে, তিনি মাস্ক পরেছেন কিনা। লালবাজার সূত্রে জানা গিয়েছে, লকডাউন অমান্য করার জন্য এ পর্যন্ত ১১৩৬৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গাড়ি আটক করা হয়েছে ১২৮০টি।

এদিন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা উত্তর কলকাতার ডেপুটি কমিশনারের টুইট করা কিছু ছবি তাঁর টুইটার হ্যান্ডেলে শেয়ার করেন। ওই ছবিগুলিতে দেখা যাচ্ছে, লকডাউন অমান্য করে বেরোনো লোকেদের কীভাবে পুলিশ আটকাচ্ছে। এরপর রাজ্যপাল তাঁর টুইটার হ্যান্ডেলে সেটি শেয়ার করে কলকাতা পুলিশের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে লেখেন, এই উদ্যোগ ভালো। এটি লাগাতার জারি রাখতে হবে।