খেলতে গিয়ে নদীতে তলিয়ে গেল শিশু

294

বারবিশা: তলিয়ে যাওয়া শিশুর খোঁজে মঙ্গলবার সংকোশ নদীতে তল্লাশি অভিযানে নামেন সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা। এদিকে সোমবার স্থানীয় বাসিন্দারা সন্ধ্যা পর্যন্ত নদীবক্ষে বহু খোঁজাখুঁজি করেন। কিন্তু সংকোশ নদীতে তলিয়ে যাওয়া ৭ বছেরর শিশু রাচিত ওরাওঁয়ের হদিস মেলেনি। ঘটনার জেরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকাজুড়ে। এদিন স্পিডবোট নামিয়ে তল্লাশি চালানোর সময় বহু উৎসুক মানুষ নদীর পাড়ে ভিড় জমান।

জানা গিয়েছে, প্রথম শ্রেণির ছাত্র রাচিত কুমারগ্রাম ব্লকের ভল্কা বারবিশা ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের পূর্ব শালবাড়ি এলাকায় দাদুর কাছেই থাকতো। রাচিতের বাবা কর্মসূত্রে রাজস্থানে আছেন। মা সংসার ছেড়ে অন্যত্র চলে গেছেন বহুদিন আগেই। দাদু হাটের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে যাওয়ার পর সোমবার দুপুরে রাচিত আরও দুজন সমবয়সী সহপাঠীর সঙ্গে বাড়ি থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে সংকোশ নদীর পাড়ে ঘুরতে যায়। নদীতে বেধে রাখা ছোট নৌকায় তিন বন্ধুতে খেলার ছলে হুটোপুটি এবং লাফালাফি শুরু করে। আচমকাই বেসামাল হয়ে নদীর জলে পড়ে যায় রাচিত ওরাওঁ। সাঁতার না জানায় নিমেষেই তলিয়ে যায় সে। ভয়ে দুই শিশু দৌড়ে বাড়ি পালিয়ে আসে এবং অভিভাকদের বিষয়টি জানায়।

- Advertisement -

এরপর গ্রামবাসীর নদীতে ছুটে যায়। বহু খোঁজাখুঁজি করেও রাচিতের হদিস না মেলায় পুলিশে খবর দেওয়া হয়। পুলিশকর্মীরা ঘটনাস্থলে আসেন এবং গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি দেহ উদ্ধারের ব্যাপারে সিভিল ডিফেন্স কর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ততক্ষণে সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় নদীতে স্পিডবোট নামানো সম্ভব হয়নি। এদিন সকাল থেকেই রাচিতের খোঁজে সংকোশ নদীতে তল্লাশি অভিযান চালান সিভিল ডিফেন্সের উদ্ধারকারী দলের সদস্যরা।

এব্যাপারে সংকোশ নদীতে তলিয়ে যাওয়া শিশু রাচিতের দাদু সানি ওরাওঁ বলেন, কিভাবে কি হলো কিছুই জানি না। নাতিকে খেতে দিয়ে বারবিশায় হাটে গিয়েছিলাম। ফিরে এসে শুনি মাছার ধরার ছোট নৌকায় খেলতে গিয়ে নদীর জলে পড়ে গেছে। বহু খোঁজাখুঁজি করেও নাতিকে পাইনি। এলাকার গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যা সিব্রতী ওরাওঁ বলেন, ওই সময় নদীর পাড়ে বড় মানুষ ছিল না।

শিশুরা নদীতে বাধা নৌকায় বিপদজনকভাবে লাফালাফি করলেও বাধা দেওয়ারও কেউ ছিল না। ফলে অঘটন ঘটে গেছে। পূর্ব শালবাড়ি থেকে বিষ্ণুনগর পর্যন্ত কয়েক কিলোমিটার সংকোশ নদীর বুকে তন্নতন্ন করে খোঁজাখুঁজির পরও শিশুটির দেহ উদ্ধার হয়নি। বারবিশা পুলিশ আউটপোস্ট সূত্রে জানা গিয়েছে, বুধবার ফের স্পিডবোট নামিয়ে তল্লাশি অভিযান চালানো হবে।