তৃণমূল ব্লক সহ-সভাপতির ফেসবুক পোস্ট ঘিরে ধোঁয়াশা

413

মেখলিগঞ্জ: ‘মেখলিগঞ্জ বিধানসভার তৃণমূল কংগ্রেস পার্টি আজ সম্পূর্ণরূপে বাঘেদের দখলে চলে আসল। খেলার মাঠে দেখা হবে।‘ বুধবার নিজের ফেসবুক পেজে এমনটাই পোস্ট করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের মেখলিগঞ্জ ব্লক সহ-সভাপতি মনোজ রায়। আর এদিন হঠাৎ করে দলের ব্লক নেতার ফেসবুক পেজে এই ধরণের পোস্ট ঘিরে দলীয় কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। এনিয়ে তাদের মধ্যে নানা প্রশ্নও উঠতে শুরু করেছে। তাদের বক্তব্য দলের এক পদাধিকারির এই ধরণের পোস্টে কিছুটা হলেও সাধারণ কর্মী সমর্থকদের একাংশের মনে প্রভাব ফেলতে পারে। যা দলের পক্ষে মোটেই শুভ নয়।

উল্লেখ্য, মনোজবাবুর স্ত্রী জয়শ্রী রায় কুচলিবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েতের প্রধানের দায়িত্বেও রয়েছেন। রাজনৈতিক দিক দিয়েও মনোজবাবুর যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে। তাই মনোমালিন্য বজায় থাকলে সেটা দলের কাছে ক্ষতিকতক হবে বলেই তৃণমূলেরই একটি অংশের দাবি। তবে এটা গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেরই বহি:প্রকাশ বলেও রাজনৈতিক মহলের একাংশ মনে করছেন।

- Advertisement -

যদিও এবিষয়ে তৃণমূলের মেখলিগঞ্জ ব্লক সভাপতি উদয় রায় বুধবার স্পষ্ট জানিয়েছেন, বর্তমানে এখানেও তাদের সংগঠন দারুণ চাঙ্গা রয়েছে। এখানে কোনওরকম গোষ্ঠীকোন্দলও নেই। তবে দলের ব্লক সহসভাপতির ফেসবুক পোস্ট নিয়ে তিনি কোনও মন্তব্য করবেন না।

বুধবার তাঁর ফেসবুক পেজে দলের প্রসঙ্গ নিয়ে পোস্ট প্রসঙ্গে মনোজবাবুর কাছে জানতে চাইলে তিনি স্পষ্টভাবে অভিযোগ করেন, ‘দলে পুরাতন কর্মীরা কোনও গুরুত্ব পাচ্ছেন না। মেখলীগঞ্জে দলটাকে বিক্রি করে দেওয়া হচ্ছে। যা মেনে নেওয়া অসম্ভব হয়ে যাচ্ছে।‘

উল্লেখ্য, কয়েকমাস আগে মেখলিগঞ্জ ব্লকে দলের যে ব্লক কমিটি ঘোষণা করা হয় সেখানে মনোজ রায়কে ব্লক কমিটির সহ সভাপতি করা হয়। তৃণমূল সূত্রেই অবশ্য জানা গিয়েছে, মনোজবাবুকে সহ-সভাপতির আসনে বসানো নিয়ে প্রথম থেকেই মনোজবাবুর অনুগামীদের মধ্যে তীব্র অসন্তোষ দেখা দেয়। কারণ তাঁরা চেয়েছিলেন মনোজবাবুকে দলের ব্লক সভাপতির পদে বসানো হোক। বিষয়টি নিয়ে তাঁরাও বেশ কিছুদিন ধরে দলের নানা মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করে আসছিলেন।কিন্তু এতেও খুব একটা লাভ হয়নি।

তাদের দাবিকে আমল দেওয়া হয়নি। এদিন মনোজবাবুর পোষ্ট সেইসব বিষয় কিছুটা হলেও স্পষ্ট করে দিয়েছে বলে অনেকেই মনে করছেন। এদিন তৃণমূলের একাংশের তরফেই অভিযোগ করা হয়, বর্তমানে অঞ্চল কমিটির দায়িত্বে এমন কিছু মানুষকে বসানো হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে তারা দিন কয়েক আগেও অন্যদলে ছিলেন। দুই-একজনের বিরুদ্ধে অবৈধ কার্যকলাপেরও অভিযোগ রয়েছে।তাই বিষয়টি তারা কোনওভাবেই মেনে নিতে পারছেন না। এমন কয়েকজন রয়েছেন তারা সমাজের চোখে ভাল মানুষও নন। হঠাৎ করে তাদের দায়িত্ব পাওয়া নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

যদিও দলের মেখলিগঞ্জ ব্লক সভাপতি জানিয়েছেন, ‘দলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ও নিয়ম মেনেই মঙ্গলবার মেখলিগঞ্জ ব্লকের প্রতিটি অঞ্চল কমিটির সভাপতিদের নাম ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে। কোথাও কোনও সমস্যাই নেই।‘

তবে মনোজবাবুর পোস্টের বিষয়ে অনেকেই মনে করছেন বাঘেদের দখলে বলতে মনোজবাবু সারাভারত ফরোয়ার্ড ব্লকের দখলে যাওয়া বোঝাতে চেয়েছেন। অর্থাৎ দিন কয়েক আগেও ফরোয়ার্ডব্লকে ছিলেন এইরকম অধিকাংশকেই দলের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।