হোলিতে শিকার উৎসব বন্ধ করতে প্রচার বনদপ্তরের

69

গয়েরকাটা: হোলিতে বন্যাপ্রাণী শিকার উৎসব পালনের রীতি রয়েছে বন জঙ্গল লাগোয়া আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে। আগে এই উৎসব পালনের প্রবনতা খুব বেশি মাত্রায় থাকলেও এখন তা অনেকটাই কমে এসেছে। তবে এখনও তা পুরোপুরি বন্ধ হয়নি। দিন পোনেরো আগে থেকে জঙ্গলে ঢুকে তল্লাশি চালিয়ে আসছে বনদপ্তর। জলপাইগুড়ি জেলার প্রতিটি রেঞ্জেই একইভাবে চলছে বন্যপ্রাণী শিকার রুখতে কড়া নজরদারি। বুধবার মোরাঘাট রেঞ্জের উদ্যোগে ও ডুয়ার্সের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আরন্যকের উদ্যোগে শিকার উৎসব বন্ধ করার লক্ষ্যে প্রচার চালানো হল। এদিন বনদপ্তরের তরফে মোরাঘাট রেঞ্জের অন্তর্গত ৭টি বনবস্তি এলাকায় মাইকিং করে প্রচার চালানো হয়। পাশাপাশি, বনকর্মীরা গভীর জঙ্গলে ঢুকেও নজরদারি চালান। জলপাইগুড়ি বন বিভাগ সূত্রে খবর, হোলি পর্যন্ত এই সতর্কতা জারি থাকবে।

মোরাঘাট রেঞ্জের রেঞ্জ অফিসার রাজ কুমার পাল বলেন, ‘আমরা সারা বছরই বনে নজরদারি চালিয়ে থাকি৷ তবে হোলির আগে বনে শিকার করার প্রবনতা বেড়ে যাওয়ায় বেশি সতর্কতা নিতে হয়। এদিন বনে নজরদারি চালানোর পাশাপাশি বনবস্তি এলাকায় গিয়ে এলাকাবাসীকে শিকার উৎসব নিয়ে সচেতন করার প্র‍য়াস চালানো হয়। সবাইকেই জঙ্গলে প্রবেশ করতে নিষেধ করা হয়েছে।’

- Advertisement -

স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা আরন্যকের সম্পাদক বিনায়ক বসু জানান, বনদপ্তরকে সাহায্য করার পাশাপাশি আমরা নিজেদের উদ্যোগে বনবস্তিবাসীদের শিকার উৎসব পালন থেকে সরে আসার অনুরোধ জানিয়েছি। সবাই মিলে এগিয়ে আসলে এই প্রবনতা বন্ধ করা যাবে।