যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতিকে মারধর, অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে পথ অবরোধ

93

রায়গঞ্জ: বিজেপি যুব মোর্চার উত্তর দিনাজপুর জেলার প্রাক্তন জেলা সভাপতি তথা রাজ্য কমিটির সভাপতি ভক্ত রায়কে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে। রায়গঞ্জ শহরের ২২ নম্বর ওয়ার্ডের শ্মশানকলোনী এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। যুব মোর্চার নেতাকে মারধরের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়ে শুক্রবার বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা পথ অবরোধে শামিল হন। অন্যদিকে, অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারির দাবিতে জেলা জুড়ে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে যুব মোর্চার নেতৃত্ব।

ঘটনার পর বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জখম অবস্থায় ভক্ত রায়কে মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়। তাঁর মাথায় বাঁশ দিয়ে আঘাত করায় অনেকটাই জখম হন তিনি। ইতিমধ্যে রায়গঞ্জ থানায় চার অভিযুক্তের নামে অভিযোগ দায়ের করেছেন ভক্ত রায়ের বৌদি মিঠু রায়।

- Advertisement -

বিজেপি নেতাদের দাবি, বেশ কয়েক বছর ধরে এলাকার তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরা তাদের যুব নেতা ভক্ত রায়কে বারবার আক্রমণ করছে। এমনকি তার নামে একাধিক মিথ্যা মামলা দিয়েও জেলে পুড়েছে তৃণমূল।ভক্ত রায় জানান, বিজেপি করার পাশাপাশি এলাকার দুষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে সরব হওয়ার অপরাধে তাঁর উপর এবং তাঁর পরিবারের সদস্যদের উপর বারবার আক্রমণ করা হচ্ছে। যদিও তৃণমূল নেতারা ভক্ত রায়ের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে এই ঘটনাকে পারিবারিক বিবাদের জেরে বলে পাল্টা দাবি করেছেন।

থানায় অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরেই এক যুবককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সহসভাপতি সানকিং দাস বলেন, ‘এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই। বিজেপি মিথ্যা অভিযোগ করছে আমাদের বিরুদ্ধে।’ অন্যদিকে, আহত ভক্তের দাদা বাসুদেব রায় বলেন, এলাকার কাউন্সিলর তপন দাস ও তৃণমূল যুব নেতা সানকিং দাসের নির্দেশে দুষ্কৃতিরা আমার ও আমার ভাইয়ের উপর আক্রমণ করেছে। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটেছে।’

বিজেপির উত্তর শহর মন্ডলের সভাপতি অভিজিৎ যোশি জানান, ভক্ত আমাদের ভালো সংগঠক। ২০১৭ সালে পুরসভা নির্বাচনে আমাদের প্রার্থী ছিল ওই ওয়ার্ডে। সেই সময় থেকে তাঁর উপর একাধিকবার আক্রমণ করা হয়েছে এবং মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মূল অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে আন্দোলন চলবে।