দুই নাবালকের মুণ্ডুহীন দেহ উদ্ধার

797

মুর্শিদাবাদ: রবিবার সকালে মুর্শিদাবাদের বহরমপুর থানার অন্তর্গত হিজলের মাঠ এলাকায় দুই নাবালকের মুণ্ডুহীন দেহ উদ্ধার হয়। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা ছাড়ায় কাঁঠালিয়া গ্রামে। ওই দুই নাবালক শুক্রবার সকাল থেকে নিখোঁজ ছিল। রবিবার দুপুর পর্যন্ত খুনের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আটজনকে আটক করেছে বহরমপুর থানার পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত দুই নাবালকের নাম মাঞ্জারুল শেখ (১৫) ও তাঞ্জারুল শেখ (১৬)। তাঁরা সম্পর্কে খুড়তোতো ভাই। গত কয়েকদিন ধরে ভারী বৃষ্টির জেরে বহরমপুরের কাঁঠালিয়া গ্রামে সমস্ত নীচু জমি ও ক্ষেত জলে ভরে গিয়েছে। ক্ষেতগুলির সঙ্গে স্থানীয় পুকুর ও বিলগুলি মিশে যাওয়ায় সেগুলিতে এখন প্রচুর মাছ পাওয়া যাচ্ছে। শুক্রবার সকালে মাঞ্জারুল ও তাঞ্জারুল, হিজল মাঠ এলাকায় একটি ছোট ডিঙি নৌকা ও জাল নিয়ে মাছ ধরতে যায়।

- Advertisement -

নাবালকদের পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, সেদিনের পর তারা আর বাড়ি ফেরেনি। তাদের এক আত্মীয় বলেন, ‘নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে মাঞ্জারুল ও তাঞ্জারুলকে একাধিকবার ফোন করা হলেও আমরা ওদের সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করতে পারিনি। এরপর আমরা আত্মীয়স্বজনদের বাড়িতে খোঁজ করা শুরু করি। সেখানেও খোঁজ না পেয়ে আমরা বহরমপুর থানার দ্বারস্থ হই।’

শনিবার পুলিশের একটি দল ওই গ্রামে তদন্ত করতে যায়। কিন্তু তারা দুই নাবালককে খুঁজে পেতে ব্যর্থ হয়। রবিবার সকালে পুলিশ ফের স্থানীয় লোকজনের সাহায্যে ওই এলাকায় নৌকা নিয়ে তল্লাশি শুরু করে। সেইসময় একটি জলা জায়গা থেকে দুই নিখোঁজ নাবালকের মুণ্ডুহীন দেহ উদ্ধার হয়। এর কিছুক্ষণ পর প্রায় ৪০ মিটার দূরে ওই দুই নাবালকের মাথা দুটি উদ্ধার হয়।

মৃতের কাকিমা ফিরোজা বিবি বলেন, ‘শুক্রবার দুই ভাই মাছ ধরতে গিয়েছিল। কিন্তু আর বাড়ি ফেরেনি। আমরা তাদের নৌকা, মাছ ধরার জাল, চটি এবং জামা কাপড় হিজলের মাঠের কাছে পেয়েছি। কিন্তু ছেলেদের কোনও খোঁজ পাইনি। পরে আমরা বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছিলাম। দুই ছেলের শরীরের অনেক জায়গায় ধারাল অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মাছ ধরতে যাওয়ায় স্থানীয় যুবক শেরফুল শেখ, সাদ্দাম শেখ এবং আরও কয়েকজন মাঞ্জারুল ও তাঞ্জারুলকে খুনের হুমকি দিয়েছিল।’

বহরমপুর থানা সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার দুপুর পর্যন্ত খুনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আটজনকে আটক করা হয়েছে।