হাইকোর্টে ভবানীপুর উপনির্বাচন সংক্রান্ত মামলার শুনানি ফের পিছোল

135

কলকাতা: কলকাতা হাইকোর্টে ভবানীপুর উপনির্বাচন সংক্রান্ত মামলার শুনানি ফের পিছোল। তৃণমূল নির্বাচন কমিশনে জানিয়েছিল, শপথ নেওয়ার ছ’মাসের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী কোনও কেন্দ্র থেকে নির্বাচনে জিতে না এলে সাংবিধানিক সংকট তৈরি হবে। তারপরেই ভবানীপুরে নির্বাচনের প্রয়োজনীয়তার কথা জানিয়ে রাজ্যের মুখ্যসচিব নির্বাচনে কমিশনের কাছে আর্জি জানিয়ে বলেছিলেন, ভবানীপুর আসনে যেহেতু মুখ্যমন্ত্রী প্রার্থী সুতরাং এখানে নির্বাচন হওয়া খুব জরুরি। কমিশন উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা করলে হাইকোর্টে নির্বাচন বন্ধের আবেদন করা হয়। অতিমারির আবহে উপনির্বাচনের অনুমতি রদ করার আর্জি জানানো হয়। সাংবিধানিক সংকটের যুক্তিও মামলাকারীর আইনজীবী খারিজ করেন।

সোমবার মামলার শুনানিতে মামলাকারীর তরফে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য জানান, এই মুহূর্তে সাংবিধানিক সংকটের কোনও সম্ভাবনা নেই। এই প্রসঙ্গে তিনি সুপ্রিম কোর্টের একাধিক নির্দেশিকার কথাও উল্লেখ করেন। কিন্তু সেই নির্দেশিকার কপি বিচারপতিদের কাছে পৌঁছোয়নি। ক্ষুব্ধ ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি এই কারণেই মামলা শুনতে অস্বীকার করেন। বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য মামলাটির শুনানি আদালতের দ্বিতীয়ার্ধে করার আর্জি জানিয়েছিলেন। কিন্তু বিচারপতি জানিয়ে দেন, ২৩ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানি হবে।

- Advertisement -

এর আগে মামলার শুনানিতে রাজ্যের তরফে প্রাক্তন অ্যাডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্ত জানিয়েছিলেন, নির্বাচন সংক্রান্ত ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্তগ্রহণের ক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের। পাশাপাশি নির্বাচন প্রক্রিয়া শুরু হয়ে যাওয়ার পর সেই প্রক্রিয়াকে অকারণে থামানো যায় না। এই ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের একাধিক নির্দেশিকা রয়েছে। অন্যদিকে, মামলাকারীদের তরফে আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য ও সব্যসাচী চট্টোপাধ্যায়ের বক্তব্য, উপনির্বাচন আর নির্বাচন এক ব্যাপার নয়। তাঁদের বক্তব্য, ভবানীপুর কেন্দ্রে কোনও সাংবিধানিক সংকট নেই এই মুহূর্তে। এত দ্রুত নির্বাচন করাতে হচ্ছে কেন? এভাবে একটা কেন্দ্রে নিজেদের ইচ্ছেমতো নির্বাচন করানো যায় না। আসলে একজন ব্যক্তির সমস্যাই এখানে মূল গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

মামলাকারীদের তরফে আদালতে আর্জি জানানো হয়েছিল, বিষয়টির দ্রুত শুনানি করা হোক। কারণ ৩০ সেপ্টেম্বর ওই কেন্দ্রে উপনির্বাচন। কিন্তু ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের বক্তব্য, তারা এই মামলায় দ্রুত শুনানির প্রয়োজন মনে করছে না। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর। এদিকে, ভবানীপুর উপনির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থী খোদ তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সিপিএমের হয়ে লড়ছেন শ্রীজীব বিশ্বাস। ওই কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াংকা টিব্রেওয়াল।