সুপারস্প্রেডার চিহ্নিত করবে হাসপাতাল

202

রণজিৎ ঘোষ, শিলিগুড়ি : উপসর্গহীন ভাইরাস বহনকারীরাই কি করোনার সুপারস্প্রেডার হিসেবে কাজ করছেন? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে এবার জেলায় জেলায় রাস্তাঘাট এবং বাজারে গিয়ে সাধারণ মানুষের লালার নমুনা সংগ্রহ করবে স্বাস্থ্য দপ্তর। উত্তরবঙ্গের আট জেলার নমুনা সংগ্রহের জন্য একটি করে হাসপাতালকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। জেলাগুলির নমুনা পরীক্ষার জন্য চারটি ভাইরাস রিসার্চ অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরিকে (ভিআরডিএল) দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তবে, জেলাগুলি এমনিতেই প্রতিদিন লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী লালার নমুনা সংগ্রহ করতে পারছে না। সেই জায়গায় প্রতি মাসে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ৪০০টি করে নমুনা সংগ্রহ করে ভিআরডিএলে পাঠানোর নির্দেশিকার বাস্তবায়ন করা কতটা সম্ভব, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

করোনার প্রথম ঢেউ এবং দ্বিতীয় ঢেউয়ে যত মানুষ সংক্রামিত হয়েছেন তাঁর একটা বড় অংশই উপসর্গহীন। এই উপসর্গহীনদের একটা বড় অংশই আবার সংক্রামিত জেনেও নিজেকে আইসোলেট করে রাখা বা ওষুধ খাওয়া কোনওটাই করেননি। তাঁরা সংক্রমণ লুকিয়ে সর্বত্র ঘুরে বেরিয়েছেন। আবার এমনই অনেক রোগী রয়েছেন যাঁরা করোনায় সংক্রামিত হলেও বুঝতেই পারেননি। অর্থাৎ উপসর্গহীনভাবেই করোনার ভাইরাসকে বহন করছেন এবং সংক্রমণ ছড়াচ্ছেনও।

- Advertisement -

এরই মধ্যে তৃতীয় ঢেউ আসন্ন। এই পরিস্থিতিতে আগাম সতর্কতা নিচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর। শুধু উপসর্গযুক্ত রোগীদের চিকিৎসা করাই নয়, উপসর্গহীন করোনা ভাইরাসবাহকদের শনাক্ত করে তাঁদেরও আইসোলেট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেইজন্যই রাজ্যের প্রতিটি জেলাতেই একটি করে হাসপাতালকে দায়িত্ব দিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষই টিম তৈরি করে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে লালার নমুনা সংগ্রহ করবে। প্রতি মাসের তৃতীয় সপ্তাহে জেলাগুলি থেকে ৪০০টি করে নমুনা সংগ্রহ করে ভিআরডিএলে পাঠাতে হবে। জেলার বিভিন্ন রাস্তাঘাট, বাজারে ঘুরে ঘুরে সাধারণ উপসর্গহীন মানুষের মধ্যে থেকে এই লালার নমুনা সংগ্রহ করতে হবে বলে নির্দেশিকায় বলা হয়েছে।

নির্দেশিকা অনুযায়ী, কোচবিহার জেলার নমুনা সংগ্রহের জন্য কোচবিহার মেডিকেল কলেজকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ওই জেলার নমুনা পরীক্ষা হবে মেডিকেল কলেজের ভিআরডিএলে। আলিপুরদুয়ারের নমুনা সংগ্রহ করবে জেলা হাসপাতাল। ওই নমুনাও পরীক্ষার জন্য কোচবিহার মেডিকেল কলেজের ভিআরডিএলে পাঠাতে হবে। কালিম্পং, জলপাইগুড়ি এবং দার্জিলিং জেলার নমুনা যথাক্রমে কালিম্পং জেলা হাসপাতাল, জলপাইগুড়ি জেলা হাসপাতাল এবং শিলিগুড়ি জেলা হাসপাতাল সংগ্রহ করবে। তিনটি জেলার নমুনাই পাঠাতে হবে উত্তরবঙ্গ মেডিকেলের ভিআরডিএলে। উত্তর দিনাজপুর জেলার নমুনা সংগ্রহ করবে রায়গঞ্জ গভর্নমেন্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল। ওই নমুনা পরীক্ষা হবে মেডিকেলের আরটি-পিসিআর ল্যাবরেটরিতে। দক্ষিণ দিনাজপুর এবং মালদা জেলার নমুনা পরীক্ষা হবে মালদার ভিআরডিএলে। ওই দুই জেলার নমুনা যথাক্রমে বালুরঘাট জেলা হাসপাতাল এবং মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল সংগ্রহ করবে। তবে, দ্বিতীয় ঢেউয়ে বিভিন্ন জেলাকে ভিআরডিএলগুলি থেকে নমুনা পাঠানোর জন্য যে টার্গেট দেওয়া হয়েছিল সেই টার্গেটই পূরণ করতে পারছে না বিভিন্ন জেলা। কাজেই নতুন নির্দেশিকা মেনে জেলার বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে উপসর্গহীনদের নমুনা সংগ্রহ মাসের ততীয় সপ্তাহে ৪০০টি নমুনা পাঠানোর চাপ কতটা সামাল দিতে পারবে জেলাগুলি, তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।