চার সীমান্ত দিয়ে বৈদেশিক বাণিজ্যের সময় বাড়ানোর ভাবনা

118

চ্যাংরাবান্ধা: সীমান্ত দিয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে বৈদেশিক বাণিজ্যের সময় বাড়তে চলেছে। বর্তমানে সকাল সাড়ে ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত চ্যাংরাবান্ধা সীমান্ত দিয়ে বাণিজ্য চলে। সেটা বাড়িয়ে সন্ধ্যো ৭টা পর্যন্ত করার চিন্তাভাবনা করছে কেন্দ্রীয় সরকার। যদিও এব্যাপারে বাংলাদেশের তরফে কোনও সবুজ সংকেত মেলেনি। এদিকে, বৈদেশিক বাণিজ্যের সময় বাড়তে চলার খবরে খুশি ব্যবসায়ীরা।

শুল্ক দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, দেশের চারটি স্থলবন্দর দিয়ে সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত বাণিজ্য করার পরিকল্পনা চলছে। গেদে, সিংগাবাদ, ভারত-ভুটান সীমান্তের জয়গাঁ এবং চ্যাংরাবান্ধা বৈদেশিক বাণিজ্য কেন্দ্রের নাম সেই তালিকায় রয়েছে।

- Advertisement -

সূত্রের খবর, বাংলাদেশে একটি পারমাণবিক শক্তি উৎপাদন কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। সেই কাজের জন্য প্রচুর বোল্ডারের প্রয়োজন। ভারত ও ভুটান থেকে বোল্ডার রপ্তানি করা হবে। দ্রুত সেই বোল্ডার বাংলাদেশে পাঠানোর জন্য রাতেও বাণিজ্য বৈদেশিক বাণিজ্য চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চলছে। এবিষয়ে নির্দেশিকা এসে পৌঁছেছে চ্যাংরাবান্ধা সীমান্তে। আর তারপরই মঙ্গলবার চ্যাংরাবান্ধা ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট এলাকায় বৈঠকে বসেন দুই দেশের শুল্ক দপ্তরের কর্তারা। সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত বৈদেশিক বাণিজ্য চললে কী কী সমস্যা হতে পারে, সেসব বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা করা হয়েছে। জিরো পয়েন্টে আয়োজিত এদিনের বৈঠকে দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী,পুলিশ এবং ব্যবসায়ীরাও উপস্থিত ছিলেন।

চ্যাংরাবান্ধা এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক বিমলকুমার ঘোষ বলেন, ‘সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্ত বাণিজ্যের বিষয়ে আলোচনা চলছে। বাণিজ্যের সময়সীমা বাড়লে অবশ্যই সুবিধা হবে।‘

এপ্রসঙ্গে কাস্টমসের চ্যাংরাবান্ধা শাখার এক আধিকারিক জানান, বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গেও আলোচনা চলছে। বুড়িমারি এবং রংপুরের শুল্ক দপ্তরের কর্তারা এবিষয়ে তাঁদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করবেন। বৈদেশিক বাণিজ্যের সময়সীমা বৃদ্ধির বিষয়টি অনেকটাই বাংলাদেশের সম্মতির উপর নির্ভর করছে।