চিতাবাঘের আতঙ্কে ঘুম উড়েছে গ্রামজুড়ে

92

ময়নাগুড়ি: চিতাবাঘের আতঙ্কে চাঞ্চল্য ছড়ালো গ্রামজুড়ে। ময়নাগুড়ি ব্লকের জলঢাকা নদী লাগোয়া বক্সিরডাঙ্গা গ্রামের ঘটনা। শুক্রবার দুপুর থেকে গ্রামবাসীরা একটি চিতাবাঘের উপস্থিতি টের পায় এলাকার চা বাগানের মাঝে।  চা বাগানের মাঝের ছায়াগাছে চিতাবাঘের মতো একটি প্রাণীকে দেখতে পান স্থানীয়দের একাংশ। যদিও কিছুক্ষণ পরে চা বাগানের মাঝে আত্মগোপন করে প্রাণীটি। ঘটনার খবর চাউর হতেই মানুষের ভিড় জমতে শুরু করে এলাকাজুড়ে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে গরুমারা বন্যপ্রাণী বিভাগের রামশাই মোবাইল স্কোয়াডের বনকর্মীরা। ময়নাগুড়ি পরিবেশপ্রেমী সংস্থার সদস্যরাও ঘটনাস্থলে আসে। দীর্ঘ সময় চা বাগানের মাঝে খোজাখুজির পরেও বনকর্মীরা তার হদিস পায়নি। খবর দেওয়া হয় ঘুমপাড়ানিগুলি ছুড়বার জন্য বনকর্মীকে। তাকে নিয়ে চা বাগানের মাঝে চলে তল্লাশি, বাগানের একাংশ নেট দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়, কিন্তু সন্ধ্যে  নেমে আসায় নজরদারি চালাতে সমস্যায় পরতে হয় বনকর্মীদের। এরপর  পটাকা ফাটিয়ে বনকর্মীরা দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করেও  সন্ধান মেলেনি চিতাবাঘের। এরপর শনিবার সকালেও বনকর্মীরা এলাকায় ক্ষতিয়ে দেখেন।

- Advertisement -

রামশাই মোবাইল স্কোয়াডের রেঞ্জার সুখদেব রায় বলেন, স্থানীয়দের একাংশ এলাকায় চিতাবাঘ দেখতে পেয়েছেন বলে দাবী করেছেন। তাঁরা এলাকায় নজরদারি চালাচ্ছেন। চিতাবাঘের খোজে তল্লাশি চলছে। খুব কাছেই নদী ও বিস্তৃত চা বাগান কোথাও আশ্রয় নিয়ে রয়েছে চিতাবাঘটি। গ্রামবাসীদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

স্থানীয়দের কথায় বিগত কয়েক দিন ধরেই ছাগল মৃত্যুর ঘটনা সামনে এসেছে। খুব কাছেই জলঢাকা নদী তাই এলাকায় বন্যপ্রাণী মাঝে মধ্যে চলে আসে। স্থানীয় বাসিন্দা দশরথ সরকার বলেন, ‘বক্সিরডাঙা সংলগ্ন নাকটানি বাড়ি এলাকায় বিগত কয়েক দিনের মধ্যে চিতাবাঘের হানায় বেশ কিছু ছাগলের মৃত্যু হয়েছে৷ অনেকে চড় এলাকায় চিতাবাঘ দেখেছেন। তাঁরা রীতিমতো আতঙ্কিত আছেন। এলাকায় বনদপ্তরের নজরদারি বাড়াবার দাবি জানিয়েছেন  তাঁরা।’