বাড়িতে ঢুকে ধরা পড়ল চিতাবাঘ, চাঞ্চল্য শিলিগুড়িতে

192

শিলিগুড়ি: সাতসকালে বাড়িতে ঢুকে পড়ল চিতাবাঘ। আর এর জেরেই সোমবার আতঙ্ক ছড়াল শিলিগুড়ির সমরনগর এলাকায়। চিতাবাঘের হানায় এলাকায় জখম হয়েছেন তিনজন। তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে। শেষ পর্যন্ত সুকনা বন্যপ্রাণ শাখার কর্মীরা ঘুমপাড়ানি গুলি ছুঁড়ে চিতাবাঘটিকে কাবু করে ধরে নিয়ে যান। এদিন সকালে মহানন্দা অভয়ারণ্যের জঙ্গল থেকে শিলিগুড়ির সমরনগরের বটতলা এলাকায় ঢুকে পড়ে চিতাবাঘটি। প্রথমেই স্থানীয় বাসিন্দা জয়ন্ত ভট্টাচার্যকে আক্রমণ করে গুরুতর জখম করে সেটি। এরপরই স্থানীয় বাসিন্দা রাজেশ্বর প্রসাদের বাড়িতে ঢুকে পড়ে। বাড়িতেই চিতাবাঘের আক্রমণে গুরুতর জখম হন রাজেশ্বরবাবুর মেয়ে জ্যোতি প্রসাদ। মেয়েকে বাঁচাতে গিয়ে জখম হন রাজেশ্বরবাবুও। তারা চিতাবাঘটিকে পালটা আক্রমণ করলে সেটি পাশের বাড়িতে ঢুকে সিঁড়িতে আশ্রয় নেয়।

ওই বাড়ির বাসিন্দারা গেট আটকে চিতাটিকে বাড়িতেই বন্দী করে ফেলেন। এরপরই খবর দেওয়া হয়। প্রধাননগর থানার পুলিশকে। পুলিশের কাছ থেকে খবর পেয়ে চলে আসেন সুকনা বন্যপ্রাণ শাখার কর্মীরাও।এরপরই শুরু হয় বাঘবন্দী খেলা। টানা তিনঘন্টা চেষ্টা করে বনকর্মীরা তিনটি ঘুমপাড়ানি গুলি ছুড়ে চিতাবাঘটিকে কাবু করেন। ততক্ষণে করোনা বিধি, লকডাউন উড়িয়ে বাইরে জমায়েত হয়েছেন হাজার হাজার মানুষ। তাদের দূরে সরাতে পুলিশকে মৃদু লাঠিচার্জ পর্যন্ত করতে হয়। যদিও উৎসুক জনতা তাতে নিরস্ত্র হয়নি। শেষ পর্যন্ত চিতাবাঘটিকে কাবু করে সঙ্গে করে নিয়ে বনকর্মীরা এলাকা ছাড়লে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এর আগেও শিলিগুড়ির লিম্বু বস্তি ও হাকিমপাড়া এলাকায় বাড়িতে চিতাবাঘ ঢুকে পড়ার ঘটনা ঘটে।

- Advertisement -