বারোম্যাইসা নদীর ওপর পাকা সেতুর কাজে খুশি এলাকাবাসী

172

মুরতুজ আলম, সামসী: দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর অবশেষে পাকা সেতুর কাজ শুরু হল রবিবার।রতুয়ার ভাদো গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় অবস্থিত বারোম্যাইসা নদীর ওপর চাপড়ায় পাকা সেতুর কাজ শুরু হওয়ায় খুশি এলাকাবাসী। এদিন পাকা সেতুর কাজের সূচনা করেন জেলা পরিষদ সদস্য হুমায়ুন কবির বাজনা। পাকা সেতুর কাজের সূচনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রতুয়া-১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি আবিদা খাতুন, ভাদো জিপির প্রধান তোফাজ্জল হোসেন ওরফে মিঠু আরো অনেকে।

এলাকার জেলা পরিষদ সদস্য হুমায়ুন কবির বাজনা জানান, বাসিন্দাদের দাবি মেনে জেলা পরিষদের উদ্যোগে মোট ২৬ লক্ষ ২২ হাজার টাকা বরাদ্দে চাপড়ায় পাকা সেতু নির্মাণের কাজ এদিন শুরু হল।সেতু নির্মাণে মাস দুয়েক সময় লাগবে। বর্ষার আগেই নব নির্মিত সেতু জনসাধারণের চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া বলে জানান হুমায়ুন কবির বাজনা। ফলে এলাকার হাজার হাজার মানুষের দীর্ঘদিনের সমস্যা মিটে যাবে। বিশেষ করে এলাকার চাপড়া, হরিণকোল, মিড়কামারি, ধনিকুজি, বাহিরকাপ প্রভৃতি গ্রামের মানুষ উপকৃত হবেন।

- Advertisement -

এলাকার বাসিন্দাদের দীর্ঘ দিনের দাবি ছিল চাপড়ায় বারোম্যাইসা নদীর ওপর একটি পাকা সেতু নির্মিত হোক। এব্যাপারে বাসিন্দারা পঞ্চায়েত, ব্লক ও জেলা প্রশাসন এমনকি এলাকার এমপি, এমএলএদের একাধিকবার জানিয়েছিলেন। কিন্তু প্রতিশ্রুতি ছাড়া পাকা সেতু হয়নি। এনিয়ে ক্ষোভে ফুঁসছিলেন এলাকার আপামর জনসাধারণ।

চাপড়ায় পাকা সেতু না থাকায় এতোদিন বাসিন্দারা বারোম্যাইসা নদীর ওপর বাঁশের সাঁকো তৈরি করে নদী পারাপার করতেন সুখা মরসুমে। বর্ষা কালে নদী জলে ভরে যাওয়ায় বাঁশের সাঁকো ডুবে যেত। ফলে প্রচন্ড সমস্যায় পড়তেন এলাকার হাজার হাজার বাসিন্দা। চাপড়ায় একটি পাকা সেতু নির্মাণের খুবই প্রয়োজন ছিল। এলাকা বাসীদের দাবি মেনে জেলা পরিষদ পাকা সেতু নির্মাণের কাজ শুরু করায় ভীষণ খুশি বাসিন্দারা। এরজন্য বাসিন্দারা এলাকার জেলা পরিষদ সদস্য হুমায়ুন কবির বাজনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।