মাংস বিক্রেতার ক্ষতবিক্ষত দেহ উদ্ধার

384

রায়গঞ্জ: হাট থেকে বাড়ি ফেরার পথে খুন হল এক মাংস ব্যবসায়ী। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে রায়গঞ্জ থানার সুভাসগঞ্জ সংলগ্ন চাপদুয়ার এলাকার ঘটনা। মৃতের নাম সাদ্দাম হোসেন (২৬)। বাড়ি রায়গঞ্জের বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েতের ঝিটকিয়া গ্ৰামে। স্থানীয় সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে রাস্তার পাশে বিদ্যুতের তার পেঁচানো অবস্থায় মৃতদেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। মৃতের শরীরের একাধিক জায়গায় ক্ষতের চিহ্ন রয়েছে। খবর পেয়ে ছুটে আসে পরিবার-পরিজনেরা। ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ মর্গে পাঠায়। তবে এখনো পর্যন্ত ব্যবাসায়ীর কাছে থাকা কয়েক হাজার টাকা ও মোবাইল ফোনের খোঁজ মেলেনি।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, হাটে হাটে মুরগির মাংস বিক্রি করেন সাদ্দাম হোসেন। বৃহস্পতিবার হাট করে বাড়ি না ফেরায় পরিবারের লোকেরা খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এদিকে নবনির্মিত কারখানা সংলগ্ন রাস্তার পাশে বিদ্যুতের তার জড়ানো অবস্থায় মৃতদেহ দেখতে পায় নৈশ প্রহরীরা। তারা স্থানীয় গ্রামবাসীদের খবর দেয়। এরপর তারা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।

- Advertisement -

মৃতের শ্বশুর হামিদুর রহমানের অভিযোগ, “আমার জামাইকে টাকা ছিনতাই করার জন্যই খুন করেছে দুষ্কৃতীরা। নবনির্মিত কারখানার নৈশ প্রহরীদের পুলিশ আটক করলেও প্রকৃত খুনিদের হদিস মিলবে।” মৃতের স্ত্রী জেসমিনা বেগমের অভিযোগ। আমার স্বামী প্রতিদিন রাত আটটার মধ্যে হাট থেকে বাড়ি ফিরে আসে। কিন্তু এদিন রাতে আর বাড়ি ফেরেনি। আমার স্বামীর কোন শত্রু আছে বলে জানিনা।”

পুলিশ সুপার সুমিত কুমার বলেন, “ময়নাতদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট নয়।” বাহিন গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান কাদের আলী বলেন, “আমি ভালো করে চিনতাম সাদ্দাম হোসেনকে। হাটে হাটে মাংস বিক্রি করত। ছোটখাটো একটি পোলট্রি ফার্ম রয়েছে। ওর মতো নিরীহ ছেলে আর হয় না। আর ওকেই এভাবে খুন হতে হল।”