বেড়েছে বালি মাফিয়াদের দাপট, কাঠগড়ায় প্রশাসন

105

হেমতাবাদ: শীত পড়তেই বালি ও মাটি মাফিয়াদের সক্রিয় হয়ে ওঠার অভিযোগ হেমতাবাদ ব্লক জুড়ে। অভিযোগ উঠছে, ব্লকের বিভিন্ন গ্রামাঞ্চল থেকে বালি মাটি তুলে শহরের বিভিন্ন জলাশয় ভরাট করা হচ্ছে। এদিকে যেমন শহরের ঘনবসতি এলাকায় জলাভূমি হারিয়ে যাওয়ায় পরিবেশের উপর প্রভাব পড়ছে অপরদিকে গ্রামাঞ্চলের নদী এবং বিভিন্ন খাস জমির বালি মাটি তুলে নেওয়ায় সেখানকার পরিবেশের উপরও বিরূপ প্রভাব পড়ছে। ফলে উদ্বিগ্ন পরিবেশ প্রেমী সংগঠন থেকে শুরু করে স্থানীয়রা। তবে, কারবারির পিছনে প্রভাবশালীদের হাত থাকায় প্রতিবাদ করা থেকে বিরত থাকছেন অনেকেই। পাশাপাশি প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। এক্ষেত্রে, ভূমি ও ভূমি সংস্কারের আধিকারিক বলেন, ‘বিষয়টিতে আমরা নজর দিচ্ছি। কোথাও এই ধরনের কারবার বরদাস্ত করা হবে না।‘

অভিযোগ, হেমতাবাদ ব্লকের খাস জমি থেকে প্রতিনিয়ত বালি, মাটি তোলার কাজ চলছে। যার ফলে এলাকায় নিত্য চলাচল করছে ডাম্পার-ট্র‍্যাক্টর। ঘটনায় রাস্তার অবস্থা বেহাল। উড়ছে ধুলো। সমস্যায় গ্রামবাসীরা। দেখা দিচ্ছে শ্বাসকষ্টজনিত রোগও। অন্যদিকে ঘটে চলেছে, মাটি বোঝাই ট্রাক্টরের ধাক্কায় দুর্ঘটনাও। এদিকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে যেমন কোটি কোটি টাকার বালি মাটি তুলে নেওয়া হচ্ছে অন্যদিকে, শহর অঞ্চলের একাধিক জায়গা ভরাট করে দেওয়ার ঘটনা ঘটে চললেও প্রশাসন নির্বিকার বলে অভিযোগ উঠছে স্থানীয় মহলে।

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, এই ঘটনায় প্রভাবশালীদের যোগ রয়েছে। অন্যদিকে, দিন-রাত ডাম্পার ট্র‍্যাক্টর চলাচলে গ্রামের রাস্তাঘাটের অবস্থা খারাপ হয়ে যাচ্ছে। পাকা রাস্তার উপর উড়ছে ধুলো। রীতিমতো আশেপাশের বাসিন্দারা শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় ভুগছেন। নজরদারি নেই প্রশাসনেরও।

বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী বলেন, ‘এই সরকারের আমলে একদিকে বালি মাফিয়া, মাটি মাফিয়া ও বিভিন্ন ধরনের তোলাবাজ, জমির দালালদের সরাসরি মদত রয়েছে শাসকদলের। পুরো বিষয়টি নিয়েই যোগসাজশ রয়েছে প্রশাসনের। চরিত্র বদল হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন নদী ও পরিবেশের। ভবিষ্যতে এর ফল ভুগতে হবে ওই গ্রামের বাসিন্দাদের।‘

তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানাইলাল আগরওয়াল বলেন, ‘বালি মাফিয়া ও মাটি মাফিয়াদের সঙ্গে দলের কোন যোগ নেই। পুলিশকে বলা হয়েছে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার।‘