দেশের প্রথম চালকবিহীন মেট্রোর উদ্বোধন প্রধানমন্ত্রীর

268

নয়াদিল্লি: সোমবার সকালে দেশের প্রথম চালকবিহীন মেট্রোর উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দিল্লি মেট্রোর ম্যাজেন্টা লাইনে মেট্রো পরিষেবা উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী। এছাড়াও, তিনি বিমানবন্দর এক্সপ্রেস লাইনে ‘ন্যাশনাল কমন মোবিলিটি কার্ড’ এর পরিষেবা চালু করলেন। বৃহস্পতিবার দিল্লি মেট্রো রেল কর্পোরেশন ঘোষণা করেছে, চালকহীন মেট্রো পুরোপুরি স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালিত হবে। যা একেবারেই সুরক্ষিত থাকবে।

দিল্লি মেট্রোর ম্যাজেন্টা লাইনে অর্থাৎ জনকপুরী ওয়েস্ট থেকে বোটানিক্যাল গার্ডেন পর্যন্ত দীর্ঘ ৩৭ কিলোমিটার রাস্তা অতিক্রম করবে এই মেট্রো। এই নতুন পরিষেবার জেরে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সুবিধা পাবেন যাত্রীরা। আশা করা যাচ্ছে, ২০২১ সালের মাঝামাঝি সময়ে পিংক লাইনে অর্থাৎ মজলিস পার্ক থেকে শিববিহার পর্যন্ত চালকবিহীন মেট্রো পরিষেবা শুরু হবে।

- Advertisement -

দিল্লির মেট্রো রেল কর্পোরেশন বর্তমানে ৩৯০ কিলোমিটারের মধ্যে ১১টি করিডোরের ২৮৫টি স্টেশনের মধ্যে যাত্রীদের মেট্রো সুবিধা সরবরাহ করছে। দিল্লি মেট্রোর দৈনিক যাত্রীসংখ্যা ২৬ লক্ষেরও বেশি। স্বয়ংক্রিয় পরিষেবা চালু হলে ডিএমআরসি বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় মেট্রো পরিষেবাগুলির মধ্যে চলে আসতে পারে। ডিএমআরসি এক বিবৃতিতে বলেছে, ন্যাশনাল কমন মোবিলিটি কার্ডের বিনিময়ে ২৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বিমানবন্দর এক্সপ্রেস লাইনে যাতায়াত করা যাবে।

নয়াদিল্লি থেকে দ্বারকা সেক্টর ২১ স্টেশন পর্যন্ত যাতায়াতের ক্ষেত্রে এই কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন যাত্রীরা। প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে খবর, ২০২২ সালের মধ্যে দিল্লি মেট্রোর পুরো নেটওয়ার্কে এই সুবিধা পাওয়া যাবে। যা পুরো বিশ্বে চালকবিহীন মেট্রো নেটওয়ার্কের প্রায় ৯ শতাংশ হবে। দিল্লি মেট্রো এখনও পর্যন্ত ভারতের বৃহত্তম মেট্রো এবং দেশের সবচেয়ে পুরোনো মেট্রো সার্ভিসগুলির মধ্যে দ্বিতীয়। ডিএমআরসি করোনা আবহে নানান বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। কোভিড পরিস্থিতিতে সুরক্ষার জন্য টোকেন বিক্রির অনুমোদন দেয়নি কর্তৃপক্ষ।