প্রাণপ্রতিম পাল, কোচবিহার : সাগরদিঘির উত্তর পাড়ের ফুটপাথ হকারদের দখলমুক্ত হলেও এবার সাগরদিঘির ওই পাড়কে টোটোস্ট্যান্ডে পরিণত করেছেন কিছু টোটোচালক। ফলে সাগরদিঘির উত্তর ও পূর্ব পাড়ের পাশের রাস্তায় মাঝেমধ্যেই যানজট হচ্ছে। শুধু তাই নয়, সাগরদিঘির উত্তর পাড়ের রাস্তা বাইক সহ অন্য যানবাহনের অবৈধ পার্কিং জোনে পরিণত হওয়ায় ওই রাস্তায় অফিসটাইমে যানজট ভয়ংকর আকার ধারণ করে। পুলিশ-প্রশাসনের উদাসীন মনোভাবের কারণেই সাগরদিঘির উত্তর ও পূর্ব পাড়ের রাস্তায় অবৈধ পার্কিং জোন তৈরি হয়েছে বলে শহরবাসীর একাংশ মনে করছেন। যদিও ডিএসপি (ট্রাফিক) চন্দন দাস বলেন, পুলিশের তরফে এই বিষয়ে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

কোচবিহার শহরের প্রাণকেন্দ্রে রয়েছে সাগরদিঘি। প্রায় দুই শতাধিক বছর আগে কোচবিহারের মহারাজা হরেন্দ্রনারায়ণের আমলে পানীয় জলের উৎস হিসেবে সাগরদিঘি খনন করা হয়। বর্তমানে ওই দিঘি আর পানীয় জলের উৎস হিসেবে ব্যবহার হয় না। এই দিঘির চারদিকে প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যায় প্রচুর মানুষ ভ্রমণ করেন। অনেক পর্যটক দিঘির পাড়ে বসে শান্ত মনোরম পরিবেশ উপভোগ করেন। সাগরদিঘির উত্তর পাড়ে কাছারি মোড় থেকে জেলা আঞ্চলিক পরিবহণ দপ্তরের উলটো দিকের ফুটপাথ এর আগে হকারদের দখলে চলে গিয়েছিল। এরপর কোচবিহার পুরসভা অভিযান চালিয়ে ওই ফুটপাথ দখলমুক্ত করে। সেই সঙ্গে ফুটপাথে ফের ব্যবসা করলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে পুর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল। এরপর থেকে সাগরদিঘির উত্তর পাড়ের ফুটপাথ ব্যবসায়ীদের দখলমুক্ত হয়েছে। কিন্তু এরপরই ওই ফুটপাথ ও সংলগ্ন রাস্তায় বাইক, টোটো সহ বিভিন্ন য়ানবাহন পার্কিং শুরু হয়েছে।

- Advertisement -

কাছারি মোড় থেকে আঞ্চলিক পরিবহণ দপ্তরের উলটো দিকের রাস্তায় অবৈধ পার্কিংয়ে জেরে সাধারণ মানুষ সমস্যায় পড়ছেন। আইনজীবী শিবেন্দ্রনাথ রায় বলেন, ফুটপাথ দখলমুক্ত হলেও ওই রাস্তায় অবৈধ পার্কিংয়ের কারণে সাধারণ মানুষকে নাজেহাল হতে হচ্ছে। কাছারি মোড় থেকে সদর মহকুমা শাসকের দপ্তর হয়ে স্টেট ব্যাংকের উলটো দিকের রাস্তা এখন অবৈধ পার্কিং জোন। এক শ্রেণির মানুষ সেখানে নিজেদের যানবাহন রাখছেন। সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের যানবাহনও সাগরদিঘির উত্তর ও পূর্ব পাড়ের রাস্তায় ধারে রাখা হচ্ছে। পুলিশের তরফে এ ব্যাপারে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয় তার অপেক্ষায় রয়েছেন কোচবিহারের সাধারণ মানুষ।