করোনার উৎস নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা

224

উহান: অস্ট্রেলিয়ান বিফ বা ওই ধরনের আমদানি করা পণ্য থেকে প্রাথমিকভাবে করোনা ভাইরাস চিনে ছড়িয়ে থাকতে পারে বলে মনে করছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) বিশেষজ্ঞরা। তবে এই তথ্যের সত্যতা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় আছে গবেষকদের মনে।

হু’র বিশেষজ্ঞ দলের নেতা পিটার এমবারেক বলেছেন, অস্ট্রেলিয়ান গোমাংস থেকে করোনা ছড়ানোর বিষয়টি এখনও অনুমানের পর্যায়ে রয়েছে। আমদানি করা পণ্য থেকে জীবাণু সংক্রমণ হয়েছিল কি না, তা জানতে এখনও অনেক অনুসন্ধান চালাতে হবে। অস্ট্রেলিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গের্গ হান্ট বলেছেন, প্রথম সংক্রামিত মানুষটার কাছাকাছি থাকা কোনও প্রাণীই করোনা ভাইরাসের উৎস, এটা হওয়াই সবচেয়ে স্বাভাবিক। এর উলটো কিছু ঘটে থাকলে তার প্রমাণটাও জবরদস্ত হতে হবে। অস্ট্রেলীয় সেনেটর ম্যাট ক্যানাভান বলেন, তদন্তের গতিপ্রকৃতি দেখে মনে হচ্ছে, চিন কিছু একটা ঢাকার জন্য প্রথম থেকেই তদন্ত প্রক্রিয়াটাকে হাস্যকর করে তুলেছে। সোজাসুজি তদন্ত ছাড়া সত্যটা জানা যাবে না।

- Advertisement -

এর আগে গত অক্টোবরে উহানে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের জন্য কোল্ড-চেইন পণ্যকেই দায়ী করেছিল চিনা সরকার। তখন প্রাথমিক উৎস হিসাবে অস্ট্রেলিয়ার পাশাপাশি ভারত, বাংলাদেশ ইত্যাদি দেশের নামও আলোচনায় এসেছিল। কিন্তু আমেরিকা ও ইউরোপের মতো দেশগুলি জানিয়েছিল, চিনের শি জিনপিংয়ে সরকার নিজেদের গাফিলতি ঢাকতে আমদানি পণ্যের ওপর দোষ চাপাচ্ছে।

চিনা বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেন, ভাইরাসের উৎস সন্ধানে বিশেষজ্ঞদের সম্ভবত আরও বহু দেশ ও জায়গায় যেতে হবে। হুর ১৪ সদস্যের দলের অন্যতম পিটার দাসাক বলেন, উহান থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর কোনও প্রমাণ মেলেনি। তবে ঠিক কীভাবে এটা ছড়াল তা জানতে বহু মাস, বছর কেটে যেতে পারে।