বিশ্বব্যাঙ্ক থেকে ২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিচ্ছে রাজ্য সরকার

275

স্বরুপ বিশ্বাস,কলকাতা:রাজকোষ প্রায় শূন্য। রাজস্ব আদায় সবে শুরু হয়েছে। স্বাভাবিক হতে আরও অপেক্ষা করতে হবে অর্থদপ্তরকে। তাই পরিস্থিতি সামাল দিতে নিয়মিত বকেয়া ঋণ শোধের পাশাপাশি ঋণও নিতে হচ্ছে রাজ্য সরকারকে। করোনা,আম পান পরিস্থিতি সামলাতে এবার বিশ্বব্যঙ্কের সহজ শর্তে ঋণের উপরও নির্ভর করার সিদ্ধান্ত নিল রাজ্য সরকার। বাজার থেকে আরও প্রায় ২ হাজার কোটি টাকা তোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগেই। এই ব্যাপারে মাথার উপর রিজার্ভ ব্যাঙ্কের ঋণ করা বা বাজার থেকে টাকা তোলার জন্য নানান বিধিনিষেধের শর্তাদি রয়েছে। এই নিয়ে সোমবার দিনভর নবান্নে অর্থদপ্তরে আলোচনা চলেছে।

করোনা জন্য তো বটেই,তারউপর ঘূর্ণীঝড় আম পানের তাণ্ডবে আর্থিক ভাবে বেহাল অবস্থা দেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গেরও। ঘুঁরে দাঁড়াতে পরিকাঠামোগত উন্নয়ন করাটা একান্ত জরুরী। বিশেষ করে শিল্পক্ষেত্রে। সেই সঙ্গে সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প এই অসময়েও চালিয়ে যেতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ রাজ্য‌ সরকার। সোমবার মন্ত্রীসভার বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘আদিবাসী,তপশিলী জাতি সহ অন্যান্য আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর মানুষের জন্য ঘোষিত সামাজিক প্রকল্প চালু রাখতে হবে। কোনও পরিস্থিতিতে তা বন্ধ রাখা যাবে না।

- Advertisement -

রাজ্যের পরিকাঠামোগত উন্নয়নও জরুরি। বিশেষ করে শিল্পের উন্নয়নে। এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বব্যাঙ্কের কাছে আমরা বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়নের জন্য ঋণ চেয়েছি। আপাতত প্রায় দু’লক্ষ হাজার কোটি টাকা সহজ শর্তে বিশ্বব্যাঙ্ক ঋণ দিচ্ছে। আমরা সেই ঋণ নিচ্ছি।

মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, বিশ্বব্যাঙ্কের ওই ওই ঋণের টাকার ১০৫০ কোটি শিল্প পরিকাঠামোগত সহ অন্যান্য পরিকাঠামো খাতে বরাদ্দ করছি আমরা। ৮৫০ কোটি টাকা পিছিয়ে পড়া মানুষের বিভিন্ন সামাজিক সুরক্ষা প্রকল্প চালু রাখতে বরাদ্দ করা হচ্ছে। রাজ্য মন্ত্রীসভার অনুমোদনই এই সিদ্ধান্ত।