করোনা রোগীদের খাবারের বরাদ্দ বাড়াল রাজ্য

424
ফাইল ছবি

কলকাতা : খাবারের মান ও পরিমাণ নিয়ে অভিযোগ ওঠায় করোনা রোগীদের জন্য প্রাত্যহিক খাবারের বরাদ্দ ২৫ টাকা বাড়িয়ে দিল স্বাস্থ্য ভবন। এর আগে জুন মাসে অভিযোগ ওঠায় প্রাত্যহিক বরাদ্দ ১৫০ টাকা করা হয়েছিল। সারাদিনের খাবারের তালিকা নিরামিষ ও আমিষভোজীদের জন্য নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু তা সত্ত্বেও আবারও অভিযোগ উঠতে থাকায় ও পুষ্টিতে খামতির অভিযোগ নজরে আসায় রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর নতুন নির্দেশিকা জারি করে করোনা রোগীদের প্রাত্যহিক খাবারের বরাদ্দ ১৭৫ টাকা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নতুন নির্দেশিকা অনুযায়ী, আমিষভোজীদের ক্ষেত্রে সকালে ২টি বিস্কুটের সঙ্গে চা। ব্রেকফাস্টে ৪ পিস পাউরুটি, সেদ্ধ ডিম, একটি কলা ও ২৫০ গ্রাম দুধ। মধ্যাহ্নভোজে সরু চালের ভাত ১৫০ গ্রাম, ডাল ৫০ গ্রাম, মাছ বা মুরগির মাংস ৮০ থেকে ৯০ গ্রাম, শাকসবজি ১০০ গ্রাম ও দই ১০০ গ্রাম। সন্ধ্যায় ২টি বিস্কুটের সঙ্গে চা। রাতে ১০০ গ্রামের সরু চাল বা চাপাটি, ৫০ গ্রাম ডাল, মাছ বা মুরগির মাংস ১০০ গ্রাম ও শাকসবজি ৭৫ গ্রাম। নিরামিষ রোগীদের জন্য দুপুরে ও রাতে মাছ-মাংসের বদলে পনির, মাশরুম বা সয়াবিন ৮০ গ্রাম বরাদ্দ করা হয়েছে।

অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়া বেঁধে দেওয়া নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তে স্বাস্থ্য ভবন কার্যত দিশাহীন অবস্থায় রয়েছে। ফেব্রুয়ারি মাসে অ্যাম্বুল্যান্স নিয়ন্ত্রণে রাখতে দ্য ওয়েস্ট বেঙ্গল অ্যাম্বুল্যান্স সার্ভিসেস বিল ২০১৯-এর খসড়া তৈরি করে স্বাস্থ্য ভবন। ওই আইনের আওতায় সমস্ত অ্যাম্বুল্যান্সকে এক ছাতার তলায় আনার প্রস্তাব ছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে আর বিল পাস করা সম্ভব হয়নি। এবার সেটিকে চূড়ান্ত রূপ দেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে। রাজ্যে মোট অ্যাম্বুল্যান্সের সংখ্যা কত, সে ব্যাপারে পরিষ্কার ছবি স্বাস্থ্য দপ্তরের কাছে নেই। এর মধ্যে স্বাস্থ্য দপ্তর আপাতত সরকারি অ্যাম্বুল্যান্সের সংখ্যা বাড়ানোর দিকে নজর দিচ্ছে। স্বাস্থ্য ভবন সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের অধীনে বিভিন্ন হাসপাতালে ২৭০টি অ্যাম্বুল্যান্স রয়েছে। এর পাশাপাশি জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের আওতায় ৮০৪টি অ্যাম্বুল্যান্স কাজ করছে। এগুলিকে ১০২ অ্যাম্বুল্যান্স বলা হয়। এর বাইরেও বিভিন্ন পুরসভা, পুলিশ ও হাইওয়ে অথরিটির প্রচুর অ্যাম্বুল্যান্স রয়েছে। স্বাস্থ্য মিশন সূত্রে জানা গিয়েছে, নতুন করে ১৯৬টি অ্যাম্বুল্যান্সের বরাত দেওয়া হয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যেই মিশনের অ্যাম্বুল্যান্সের সংখ্যা ১ হাজারে পৌঁছোবে। জেলাস্তরে এমএলএ ও এমপি তহবিল থেকে কেনা অ্যাম্বুল্যান্সের তালিকাও তৈরি করা হচ্ছে।

- Advertisement -

রাজ্যে করোনা চিকিৎসায় নতুন নিয়ম চালু করতে চলেছে স্বাস্থ্য ভবন। এতদিন চিকিৎসকরা বিভিন্ন হাসপাতালে অল্প সময়ে জন্য ডিউটি করতে যেতেন। ওই কদিন রোগীর অবস্থা বুঝে উঠতে না উঠতেই তাঁদের চলে যাওয়ার সময় হত। এজন্য এবার করোনা সংক্রামিতদের চিকিৎসার দাযিত্বে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলি থেকে তাঁরা বিভিন্ন কোভিড হাসপাতালে টানা একমাস ডিউটি করবেন। ৪২টি সরকারি কোভিড হাসপাতালে ডাক্তারের দল পাঠানো হবে। ওই দলে জেনারেল মেডিসিন বা চেস্ট মেডিসিন, অ্যানাস্থিজিওলজির শিক্ষক-চিকিৎসক আরএমও এবং সিনিয়ার রেসিডেন্টরা থাকবেন। একইভাবে জেলা হাসপাতালগুলিও এক মাসের জন্য সেখানকার কোভিড হাসপাতালগুলিতে ডাক্তারদের দল পাঠাবে। ডাক্তারদের থাকার ব্যবস্থা করবে সংশ্লিষ্ট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।