রক্ত দিয়ে ক্যানসার আক্রান্তকে বাঁচালেন শিক্ষক

পঙ্কজ মহন্ত, বালুরঘাট : লকডাউনের মধ্যে ব্লাড ব্যাংকে গিয়ে ক্যানসার আক্রান্ত এক মহিলাকে রক্তদান করলেন বালুরঘাটের এক শিক্ষক। দীর্ঘদিন লকডাউনের জন্য কুমারগঞ্জ ব্লকের একটি গ্রামের অসহায় এক বিধবা মহিলার পরিবার বিপদের মুখে পড়ে।

ওই মহিলা দীর্ঘদিন ধরে স্তন ক্যানসারে ভুগছেন। জেলা হাসপাতালে নিয়মিত তাঁর কেমোথেরাপি চলছে। লকডাউনে সময়মতো কেমো না পাওয়ায় তাঁর অবস্থার অবনতি ঘটে। তাঁর দেওর ও ভাগনে সোমবার তাঁকে জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসক শ্রাবণী চট্টোপাধ্যায়ের অধীনে প্রয়োজনীয় পরীক্ষানিরীক্ষার পর জানা যায়, তাঁর দেহে রক্তের পরিমাণ অস্বাভাবিক হারে কমে গিয়েছে। দ্রুত দুই ইউনিট রক্তের প্রয়োজন। শরীরে য়থেষ্ট পরিমাণে রক্ত না থাকলে তাঁর কেমো নেওয়ার ক্ষমতা থাকবে না। কিন্তু ওই মহিলার রক্তের গ্রুপ বিরল বি নেগেটিভ। এই পরিস্থিতিতে তাঁর পরিবারের লোকজন হন্যে হয়ে ওই গ্রুপের রক্তের খোঁজ চালাতে শুরু করেন। কিন্তু তা না পেয়ে প্রায় হতাশ হয়ে পড়েন সবাই। তখন বালুরঘাটের বাসিন্দা, পেশায় প্রাথমিক স্কুলশিক্ষক বিভাস দাসের সঙ্গে তাঁরা যোগাযোগ করেন। তিনি নিজের বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত দান করার ইচ্ছে জানিয়ে মাঝেমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে থাকেন। যোগাযোগ হওয়ামাত্র বিভাসবাবু রক্ত দান করতে ব্লাড ব্যাংকে চলে যান। তাঁর রক্তে খানিকটা আরাম পান ক্যানসার আক্রান্ত ওই মহিলা।

- Advertisement -

বিভাসবাবু বলেন, আমার শরীরে বিরল বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত। তাই কোনও শিবিরে সচরাচর রক্তদান করি না। আপৎকালীন সময়ে রক্তদানের জন্যই এমনটা করে থাকি। আমি যে কোনও মরণাপন্ন রোগীর জন্য নিয়মানুসারে প্রতি তিন মাস অন্তর রক্তদানে প্রস্তুত থাকি। সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার ফোন নম্বরও দিই। রক্তদান আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত বিভিন্ন সংস্থা এবং ব্লাড ব্যাংকেও আমার ফোন নম্বর দেওয়া আছে। স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত ওই মহিলার পরিজনরা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করলে আমি নিজেই হাসপাতালে গিয়ে রক্ত দিয়েছি। আরেকজন রক্তদাতার খোঁজও তাঁদের দিয়েছি। ওই দুই ইউনিট রক্ত ওই মহিলার কাজে লেগেছে। গত বছরেও ওই মহিলার জন্য জেলা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকে রক্ত দিয়েছিলাম।

এদিকে, জেলা জুড়ে রক্ত সংকটের মধ্যে নিজের জন্মদিনে রক্তদান করলেন বালুরঘাট ব্লকের ডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের মালঞ্চা এলাকার বাসিন্দা দুলাল বর্মন। বুধবার বালুরঘাট ব্লাড ব্যাংকে গিয়ে রক্তদানের মাধ্যমে নিজের জন্মদিন পালন করেন দুলাল।