একান্ত উদ্যোগে সীমান্তের শিল্পীদের জন্য মিউজিক স্টুডিও গড়লেন শিক্ষক

186

মেখলিগঞ্জ: সমাজসেবা, সাহিত্য, সংস্কৃতি এবং লোকসংস্কৃতির বিকাশের জন্য নিজের বসত ভিটা দান করেছেন শিক্ষক তথা বিশিষ্ট লোকসংস্কৃতি গবেষক শচীমোহন বর্মন। এবার সীমান্ত এলাকার শিল্পীদের জন্য ১৫ লক্ষেরও বেশি টাকা খরচ করে মিউজিক স্টুডিও তৈরি করে নজির গড়লেন মেখলিগঞ্জ ব্লকের ভোটবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা শচীমোহন বাবু। বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী বানিয়া পাড়া এলাকায় মুক্তচিন্তা ভবনের পাশেই তিনতলা তাঁর স্টুডিও। যে স্টুডিওটি বিনামূল্যে ব্যবহার করে বিভিন্ন শিল্পীগণ তাদের গান, কবিতা, আবৃত্তি ইত্যাদি রেকর্ড করতে পারবেন। এজন্য স্টুডিওর ভিতরে বসানো হয়েছে আধুনিক বিভিন্ন মেশিনপত্র। স্টুডিওটি তৈরি করতে এক বছরেরও বেশি সময় লেগেছে। সম্পূর্ণ নিজের বেতনের জমানো টাকা থেকে ব্যয় করেছেন।

বুধবটা এই স্টুডিওর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভোটবাড়ি গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান মৃত্যুঞ্জয় সিংহ সরকার, মাওলানা কবি শহিদুল ইসলাম, বেতারশিল্পী অভয় রায়, দিলীপ বসাক, সুনীল অধিকারী প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। স্টুডিও উদ্বোধনের পর একটি আলোচনাসভাও অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উপস্থিত বিভিন্ন শিল্পী এবং সাহিত্যিকগণ আলোচনা করেন। শচিমোহনবাবু ইতিমধ্যেই লোকও সংস্কৃতি গবেষণা ও সংরক্ষণ কেন্দ্র তৈরি করেছেন। তিনি বানিয়েছেন বিশ্বের প্রথম সাহিত্যের স্কুল। যে স্কুলে বিনামূল্যে নাচ, গান, কবিতা, নাটক ইত্যাদি শেখানো হচ্ছে।

- Advertisement -

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সাহিত্য সংস্কৃতি নিয়ে কাজ করার কারণে শচীমোহন বাবুর ব্যাপক পরিচিতি হয়েছে উত্তরবঙ্গ, ভিনরাজ্য সহ বিদেশেও। তাঁর সমস্ত কাজে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করে চলেছেন স্ত্রী নন্দবালা বর্মনও। তিনিও নিজে একজন কবি এবং নাট্যকর্মী। তাঁরা জানান, এসব কর্মকান্ডের কথা খোলসা করে প্রচার করতেও খুব একটা পছন্দ করেন না। তাদের কথায় কি আর করতে পেরেছি আমরা। মানুষের পাশে থাকার একটু চেষ্টা করেছি মাত্র।