পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশার চিত্রই ‘থিম’ সরস্বতী পুজোর মণ্ডপে

72

হরিশ্চন্দ্রপুর: বিগত বছরের করোনার জেরে দেশজুড়ে শুরু হয়েছিল লকডাউন। আর এই লকডাউনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন দেশের পরিযায়ী শ্রমিকরা। সেসময় তাদের ঘরে ফেরার করুণ চিত্র বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে উঠে এসেছিল। এবারে লকডাউনে পরিযায়ী শ্রমিকদের দুরাবস্থার কথা হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকার ভালুকা গ্রাম পঞ্চায়েতের বারুদ সংঘের সরস্বতী পুজোর মণ্ডপে ফুটে উঠল।

প্রতিবছরই এই ক্লাব সরস্বতী পুজোর নিত্য নতুন থিম পুজোর আয়োজন করে। এবছর বারুদ সংঘের সরস্বতী পুজোতে মণ্ডপে ফুটে উঠল পরিযায়ী শ্রমিকের দুর্দশা ছবি। ফুটে উঠল করোনা রোগীর চিত্র তার সঙ্গে সঙ্গে কোয়ারান্টিন সেন্টারের ছবিও। লকডাউন চলাকালীন রেললাইনে রাতে শুয়ে থাকা অবস্থায় চলন্ত ট্রেনের নিচে চাপা পড়ে একসাথে ১৬ জন পরিযায়ী শ্রমিকের মৃত্যু ঘটে এই ঘটনাও মডেলের মাধ্যমে এবারে থিমে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

- Advertisement -

এদিন ক্লাব সম্পাদক অমিত মাঝি বলেন, ‘প্রতি বছর আমরা নিত্য নতুন থিমের দ্বারা সমাজের বিভিন্ন চিত্র সরস্বতী পুজোমণ্ডপে ফুটিয়ে তুলি। এবছরে তার ব্যতিক্রম হয়নি। গত বছর আমরা এনআরসি ইস্যুতে ভালুকা স্টেশনে ভাঙচুর চালানো হয় সেই ঘটনা আমাদের পুজো মণ্ডপে আমরা বিভিন্ন মডেল ও চিত্র সহযোগে ফুটিয়ে তুলে ছিলাম।’

বলেন, ‘বিগত বছর করোনা ভাইরাসের জন্য লকডাউন ও তার জেরে দেশজুড়ে পর্যায়ে শ্রমিকদের সংকট চিত্র সংবাদমাধ্যমে বারেবারে ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল। এবারে আমরা সরস্বতী পুজোমণ্ডপে আমরা মূলত শ্রমিকদের দুর্দশার কথা তুলে ধরেছি। আর সঙ্গে সঙ্গে এই লকডাউনে পুলিশ প্রশাসনও রাজ্য সরকারের সহযোগিতার কথা বিভিন্ন চিত্র ও মডেলের মাধ্যমে দেখানো হয়েছে। এই পুজোর জন্য এলাকার শিল্পীরাই একমাস পরিশ্রম করে সরস্বতী পুজো মণ্ডপে থিম সাজিয়ে তুলেছেন। প্রতিবারের মতো এবারও প্রথমদিন সরস্বতী মাকে পায়েস দিয়ে ভোগ দেওয়া হয়। এবারের বারুদ সংঘের নতুন চিন্তাধারার এই থিমের পুজো পুজো দেখতে প্রথমদিন থেকেই হাজার হাজার দর্শনার্থীর ভিড় জমাতে থাকে পুজোমণ্ডপে।’