স্কুল মাঠে হাঁটু জল, চাঁদা তুলে তিনটি পাম্পসেট চালিয়ে জল নিষ্কাশন করলেন যুবকরা

730

পলাশবাড়ি: বৃষ্টি হলেই জলমগ্ন হয়ে পড়ে স্কুলের মাঠ। রবিবার বাধ্য হয়ে মাঠের জল নিষ্কাশনের জন্য এগিয়ে আসলেন যুবকরা। আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের মেজবিল-গুদামটারি এলাকার প্রাইমারি স্কুল মাঠে এদিন তিনটি পাম্পসেট মেশিন লাগানো হয়। এলাকার যুবকরা চাঁদা তুলে এই কাজ করেন। তাঁদের দাবি, এই মাঠে কিশোর-যুবকরা নিয়মিত খেলাধুলো ও শরীরচর্চা করেন। প্রবীণরা পায়চারি করেন। কিন্তু মাঠটি অনেক নীচু হওয়ায় বৃষ্টি হতেই জল জমে যায়। তাই স্কুল মাঠের সংস্কারের দাবি তুলেছেন বাসিন্দারা। সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েত কতৃপক্ষ বিষয়টি খতিয়ে দেখে পদক্ষেপ করার আশ্বাস দিয়েছে।

ফালাকাটা-সোনাপুর জাতীয় সড়কের নিউরোড থেকে কিছুটা দক্ষিণ দিকে অবস্থিত মেজবিল হিন্দি ট্রাইবাল প্রাথমিক বিদ্যালয়। এই স্কুলের চারপাশে রয়েছে ঘন জনবসতি। এই চত্বরে আর কোথাও ফাঁকা জায়গা নেই। এদিকে করোনা পরিস্থিতির জেরে কয়েক মাস থেকেই স্কুল বন্ধ রয়েছে। তবে স্থানীয় বাসিন্দারা নানাভাবে এই স্কুল মাঠের ব্যবহার করেন। ভোরবেলা এলাকার প্রবীণ বাসিন্দারা মাঠে পায়চারি ও শরীরচর্চা করেন। বিকেলের দিকে এলাকার প্রায় একশোজন কিশোর-যুবক মাঠে খেলাধুলো ও শরীরচর্চা করেন।

- Advertisement -

কিন্তু বৃষ্টি হলেই সব বন্ধ হয়ে যায়। গত কয়েকদিন থেকেই রাতের দিকে লাগাতার বৃষ্টি হচ্ছে। সেজন্য মাঠে হাঁটু সমান জল জমে যায়। এদিন মাঠের জল নিষ্কাশনের জন্য উদ্যোগী হন পাড়ার যুবকরা। তাঁরা সবার কাছ থেকে চাঁদা সংগ্রহ করেন। তারপর মাঠের জল বাইরে বের করার জন্য তিনটি পাম্পসেট মেশিন ও পাইপ লাগানো হয়। এভাবে বিকেলের দিকে মাঠের জল কমে যায়।

স্থানীয় যুবক বিদ্যুৎ মারাক, বিক্রম ওরাওঁ, সুশান্ত ওরাওঁ, রাজেশ মারাক জানান, তিনদিন থেকে মাঠে জল জমেছিল। শরীরচর্চা, খেলাধুলো সব বন্ধ রয়েছে। এজন্যই চাঁদা সংগ্রহ করে এদিন জল বের করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়। মাঠের সমস্যার কথা মেনে নিয়েছে স্কুল কতৃপক্ষও।

সংশ্লিষ্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষক নীহার রঞ্জনসরকার বলেন, স্কুল মাঠের এই সমস্যা দীর্ঘদিনের। নীচু হওয়ায় বৃষ্টি হলেই জল জমে থাকে। তবে আমাদের পক্ষ থেকে মাঠ সংস্কার করার আবেদন বার বার গ্রাম পঞ্চায়েত কতৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। পূর্ব কাঁঠালবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান সৌরভ পাল বলেন, বিষয়টি শুনেছি। গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে ওই স্কুল মাঠ সংস্কারের জন্য পদক্ষেপ করা হবে।