নিজেদের কথা শোনাতে যাচ্ছেন উত্তরের রূপান্তরকামীরা

406

তমালিকা দে, শিলিগুড়ি : মঞ্চে দাঁড়িয়ে নিজেদের কাহিনি শোনাতে প্রথমবার দক্ষিণবঙ্গে পাড়ি দেবেন উত্তরবঙ্গের রূপান্তরকামীরা। তাঁদের বেড়ে ওঠার ক্ষেত্রে সমাজে যে সব প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয় তা নিয়ে তৈরি নাটক অন্তরীপ মঞ্চস্থ করতে রবিবার বহরমপুর যাবে রূপান্তরকামীদের ১০ জনের একটি নাট্যগোষ্ঠী। দিল্লিতেও নাটকটি মঞ্চস্থ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে তারা।

রাধাকৃষ্ণের  প্রেমের উপর ভিত্তি করে লেখা এই নাটকের  মূল চরিত্রে রয়েছেন নর্দার্ন ব্ল্যাকরোজ সোসাইটির সদস্য শিলাদিত্য মেঘ ঘোষ ও সৌভিক ঘোষাল। কাহিনির চিত্রনাট্যে কৃষ্ণরূপী শিলাদিত্য ওরফে কৌশিককে প্রেম নিবেদন করছেন রাধারূপী সৌভিক ওরফে রুদ্র বন্দ্যোপাধ্যায়। নাটকে রুদ্র জন্মগতভাবে একজন পুরুষ হলেও তাঁর মানসিক সত্তা নারীর। তিনি একটি নাটকে নারীর ভূমিকায় অভিনয়ে সুযোগ পান। সেই ভূমিকা পালন করতে গিয়ে তাঁর মধ্যে নারীসত্তা আরও বেশি করে ফুটে ওঠে। প্রথমে রুদ্রের এই নারীসত্তা কৌশিক মানতে নারাজ হলেও পরবর্তীতে নাটকে রাসলীলার একটি দৃশ্যে অভিনয় করতে গিয়ে কৌশিক ও রুদ্র একে অপরের প্রতি ভালোবাসার টান অনুভব করেন। অবশেষে নানা বাধা পেরিয়ে সমাজের চোখে পূর্ণতা পায় তাঁদের প্রেম। একবিংশ শতাব্দীতে দাঁড়িয়ে মানসিকতার দিক থেকে পিছিয়ে রয়েছেন, এমন মানুষের সংখ্যা সমাজে নেহাত কম নয়। ৩৭৭ ধারা রদ হলেও সমাজে অনেকের চোখে এখনও যেন তা অপরাধ।  তাই স্বাধীনভাবে বাঁচতে প্রতি পদে বাধা পেতে হয় তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের। তাঁদের এই জীবনযাত্রা নিয়ে গতবছর শিলিগুড়িবাসীর কাছে অন্য বার্তা তুলে ধরেছিল ঋত্বিক নাট্যসংস্থা। মূল গল্পটি লিখেছিলেন শিলিগুড়ি প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের প্রাক্তন চেযারম্যান প্রণবকুমার ভট্টাচার্য। নাটকটি এতটাই প্রশংসিত হয়েছিল যে দীনবন্ধু মঞ্চে চারবার তা অভিনীত হয়।

- Advertisement -

তৃতীয় লিঙ্গের মানুষের জীবনী নিয়ে তৈরি এরকম একটি নাটক তুলে ধরায় খুশি এলজিবিটিকিউ কমিউনিটির সদস্যরা। সংস্থার সম্পাদক শিলাদিত্য মেঘ ঘোষ জানান, এখনও সমাজে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষকে নিয়ে অনেকের মধ্যে ভুল ধারণা রয়েছে। অনেকেই প্রতিদিন নানা প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হচ্ছেন। আমাদের নিয়ে তৈরি এই নাটকটিতে এত সুন্দর করে প্রতিটি বিষয় তুলে ধরা হয়েছে যা সত্যিই দর্শকদের ভাবনার পরিবর্তন ঘটাবে। নাটকে অংশগ্রহণকারী দশজন সদস্য আমাদের কমিউনিটির। প্রত্যেকেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। ইতিমধ্যেই দিল্লির রঙ্গমঞ্চে নাটকটি মঞ্চস্থ করার একটি প্রস্তাব রয়েছে। নিজেদের জীবনী নিয়ে তৈরি এমন একটি নাটকে অভিনয়ে সুযোগ পেয়ে গুড়িয়া পাল বলেন, সত্যিই খুব খুশির বিষয়। আমাদের জীবন নিয়ে তৈরি নাটক আজ উত্তর থেকে দক্ষিণে যাচ্ছে। এই নাটকের মাধ্যমে আমাদের নিয়ে সমাজের অনেকের ধারণা বদলাবে বলে আশা করছি। কারণ নাটকে যা যা দেখানো হয়েছে প্রত্যেকটি দৃশ্যের মিল রয়েছে আমাদের সঙ্গে। এছাড়াও এই নাটকে রয়েছেন নর্দার্ন ব্ল্যাক রোজ সোসাইটির জোসেফ রায়, নির্মল বর্মন, বাপি সরকার, অনমোল আজিজ, অভিজিত্ সাহা ও রাজা দাস (বর্ষা)।