ইকো কার্ডিওগ্রাম মেশিন বসলেও চালানোর লোক নেই

190

জলপাইগুড়ি : হার্টের বিভিন্ন ধরনের ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য জলপাইগুড়ি সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে বসল ইকোকার্ডিওগ্রাম মেশিন। মেশিন সরবরাহকারী সংস্থা মেশিনটির ইনস্টলেশন পর্ব শেষ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দিয়ে যায়।

কিন্তু অত্যাধুনিক মেশিন এলেও সমস্যা সেই বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নিয়ে এই মেশিন চালানোর জন্য কার্ডিওলজিস্ট প্রয়োজন, যা এই মুহূর্তে জলপাইগুড়ি জেলা হাসপাতালে একজনও নেই। যে কারণে মেশিন কে চালাবেন, আর কীভাবে মিলবে পরিষেবা তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন।

- Advertisement -

যদিও কর্তৃপক্ষের দাবি, মেশিনের পাশাপাশি সেটি চালনা করার জন্য স্বাস্থ্য ভবন থেকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার পাঠানো হচ্ছে। উত্তরবঙ্গের জনস্বাস্থ্য বিভাগের ওএসডি চিকিৎসক সুশান্ত রায় বলেন, হার্টের চিকি‌ৎসার জন্য এই ইকোকার্ডিওগ্রাম মেশিনের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সরকারি পরিকাঠামোতে এই মেশিন ছিল না। তবে এই মেশিন চালানোর জন্য কার্ডিওলজিস্ট প্রয়োজন, যা এই মুহূর্তে আমাদের হাসপাতালে নেই। তবে উত্তরবঙ্গের জন্য ডাক্তার চেয়ে যে তালিকা পাঠানো হয়েছে তাতে জলপাইগুড়ির জন্য কার্ডিওলজিস্টের উল্লেখ রয়েছে। ইতিমধ্যে ওই তালিকা থেকে ১১ জন ডাক্তারকে উত্তরবঙ্গে বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হয়েছে। আমরা আশা করছি খুব শীঘ্রই একজন কার্ডিওলজিস্ট আমরা পাব।

হার্ট অ্যাটাক হলে এই মুহূর্তে রোগীর শারীরিক পরিস্থিতি বোঝার জন্য জেলা হাসপাতালে ইসিজি একমাত্র ভরসা। ইসিজি রিপোর্টে সন্দেহজনক কিছু থাকলে সেক্ষেত্রে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজে স্থানান্তরিত করা ছাড়া আর কোনও উপায় থাকে না ডাক্তারবাবুদের। সেক্ষেত্রে আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থায় বর্তমানে একটা ইকোকার্ডিওগ্রাম মেশিন সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে থাকা খুবই জরুরি। এই মেশিন থাকলে হার্ট কতটা সঠিকভাবে কাজ করছে তা যেমন বোঝা যাবে, একইভাবে হার্টের কোনও অংশের ভালভে যদি ব্লক থাকে, সেক্ষেত্রেও পরিষ্কার ছবি ডাক্তারবাবুর সামনে উঠে আসবে।

অন্যদিকে, দীর্ঘদিন ধরে যাঁরা হার্টের সমস্যায় ভুগছেন, তাঁদেরও রুটিন চেকআপে ইকোকার্ডিওগ্রাফি করা খুবই জরুরি হয়ে পড়ে। কারণ, হার্টের পরিস্থিতি বুঝে ডাক্তারবাবুরা রোগীকে সেইমতো চিকিৎসা এবং ওষুধ দিয়ে থাকেন, যা কী না ইসিজির সাহায্যে দেখে কোনওভাবেই সম্ভব নয়।

জেলায় বেসরকারি পরিকাঠামোতে কিছু জায়গায় ইকোকার্ডিওগ্রাফির ব্যবস্থা থাকলেও তা যথেষ্ট ব্যয়সাপেক্ষ। অনেক গরিব মানুষই প্রয়োজন হলেও অর্থের অভাবে এই পরীক্ষা করাতে পারতেন না। সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে ইকোকার্ডিওগ্রাম মেশিন চালু হলে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এই পরিষেবা পাবেন মানুষজন। কিন্তু সব কিছুই অপেক্ষা করছে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নিয়োগ হওয়ার ওপর।

হাসপাতালে সূত্রে খবর, মেডিসিনের এক-দুজন ডাক্তারবাবু সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে রয়েছেন। যাঁদের এই ইকোকার্ডিওগ্রাম মেশিন চালানোর পূর্ব অভিজ্ঞতা রয়েছে। কিন্তু তাঁদের এই কাজে লাগানো হবে কি না তা এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি হাসপাতালে কর্তৃপক্ষ।