আর কোনও উপায় ছিল না, বলছেন সৌরভ

অরিন্দম বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা : প্রবল হতাশ। তুমুল বিরক্ত। কিছুটা ক্ষুব্ধও।

চতুর্দশ আইপিএল স্থগিত। বেলার দিকে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের তরফে সিদ্ধান্ত ঘোষণা হওয়ার পরই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা শুরু হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাতটার কিছু পর যখন মহারাজকে মোবাইলে ধরা গেল, গলায় অসম্ভব বিরক্তি। হতাশাও। এমন মনোভাব নিয়ে তিনি উত্তরবঙ্গ সংবাদকে জানিয়ে দিলেন, ক্রিকেটাররা করোনা সংক্রামিত হওয়ার পর প্রতিযোগিতা স্থগিত করা ছাড়া আর কোনও উপায় ছিল না। চলতি বছরের বাকি সময়ে কোনও উইন্ডো পাওয়া গেলে আইপিএল শেষ করার মরিয়া চেষ্টা হবে। যদিও সেটা কবে, কোন মাসে হতে পারেধারণা নেই বোর্ড সভাপতিরও।

- Advertisement -

আইপিএল স্থগিত

আর কোনও উপায় ছিল না আমাদের। চরম সিদ্ধান্তটা আজ নিয়ে নিয়েছি আমরা। ক্রিকেটারদের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর ঝুঁকি নেওয়ার জায়গা নেই আর। চলতি বছরের বাকি কোনও সময়ে চেষ্টা হবে উইন্ডো বের করে আইপিএলের ৩০টি ম্যাচ শেষ করার। কিন্তু সেটা কবে, জানি না।

জৈব সুরক্ষা বলয়ে করোনা

জানি না কীভাবে এমনটা হল। মানুষ তো বাড়িতে সারাদিন বসে থেকেও করোনায় সংক্রামিত হচ্ছে। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে হবে আমাদের। দেখা যাক।

ক্রিকেটারদের সংক্রমণ

হ্যাঁ, খুবই উদ্বেগের ব্যাপার। জীবনের ঝুঁকি রয়েছে। আমাদের কাছে ক্রিকেটারদের স্বাস্থ্য সবকিছুর আগে। তাই আজ সকালে প্রতিযোগিতা স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমরা। ভেবেছিলাম, কয়েকদিন বন্ধ রেখে বাকি দিনগুলোয় ডাবল হেডার করে আইপিএল শেষ করা যাবে। কিন্তু পরিস্থিতি এত দ্রুত বদলে গেল, সেটাও করা গেল না এখন।

স্মিথদের দেশে ফেরা

দায়িত্ব নিয়ে বলছি, সবাই নিজেদের দেশে ফিরে যাবে। বিরাট কোনও সমস্যা হবে বলে মনে হয় না। তবে হ্যাঁ, রাতারাতি কিছু হবে না। আমাদের হাতে কোনও জাদুকাঠি নেই। একটু সময় লাগবে।

ক্রিকেটারদের টিকাকরণ

সিদ্ধান্তটা এখন আর বিসিসিআইয়ে নয়, সরকারের। তাই এখনই এব্যাপারে কিছু বলতে পারছি না।

অক্টোবরের টি২০ বিশ্বকাপ

দেখা যাক কী হয়, এখনও তো প্রায় ছয় মাস বাকি।

ভারতের বদলে দুবাই

বিকল্প হিসেবে ইউএই-র নাম তো আগে থেকেই ছিল। এত তাড়াহুড়োর কিছু হয়নি। একটু ধৈর্য ধরে দেখুন না কি হয়।