গৌরহরি দাস, কোচবিহার : গত প্রায় ছয়মাস ধরে তিরিশটি নতুন বাস উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগমের কোচবিহারের বাস টার্মিনাসে পড়ে থেকে নষ্ট হতে বসেছে। কোটি কোটি টাকার নতুন বাস এভাবে পড়ে থাকায় সাধারণ যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তাঁরা বলছেন, বেশ কয়েকটি রুট বন্ধ হয়ে রয়েছে। অথচ বাসগুলি ফেলে রেখেছে কর্তৃপক্ষ। সংস্থার আধিকারিকরা জানিয়েছেন, মূলত কর্মীর অভাবেই বাসগুলি চালানো যাচ্ছে না। তাছাড়া আরও কিছু সমস্যা রয়েছে।

উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থাকে পুনরুজ্জীবিত করতে ভিআরএস দিয়ে কর্মীসংখ্যা কমানোর পাশাপাশি পুরোনো বাস বদলে নতুন বাস কেনার উপর জোর দিয়েছিল সংস্থা। সেই লক্ষ্যে গত এক-দেড় বছরে রাজ্য সরকার কয়েক কোটি টাকা খরচ করে ১৩৯টি অত্যাধুনিক নতুন বাস নিযে আসে সংস্থায়। সংস্থায় বর্তমানে মোট বাস রয়েছে ৯৬৭টি। এর মধ্যে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৬৫০টি বাস চলাচল করে। এনবিএসটিসি সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্তমানে সংস্থায় স্থায়ী ও অস্থায়ী মিলিযে প্রায় ৩২০০ কর্মী রয়েছেন। এর মধ্যে স্থায়ী কর্মী  ৯৭০ জন। কনট্রাকচ্যুয়াল কর্মী রয়েছেন প্রায় ২০০০ জন। পাশাপাশি নিরাপত্তারক্ষী ও শ্রমিক মিলিয়ে আরও কয়েকশো অস্থায়ী কর্মী রয়েছেন। এছাড়া সংস্থার পেনশনার রয়েছেন প্রায় ৪৩০০ জন। কর্মী ও পেনশনারদের বেতন এবং পেনশন বাবদ প্রতিমাসে ১২-১৩ কোটি টাকা খরচ হয়। যাত্রীভাড়া সহ অন্যান্য আয় মিলে মেরেকেটে প্রতিমাসে সংস্থার আয় হয় ১৪-১৫ কোটি টাকা। সংস্থার গাড়ি চালাতে তেলের খরচ, কর্মীদের বেতন সহ সব মিলিযে প্রতিমাসে সংস্থার খরচ হয় ২০ কোটি টাকার কিছু বেশি।

অর্থাত্ আয়ের তুলনায় প্রতি মাসে সংস্থার প্রায় ৫-৬ কোটি টাকা বেশি ব্যয় হয়। আর প্রতিমাসে এই ঘাটতি পূরণ করতে হয় রাজ্য সরকারকে। সংস্থাকে নিজের পায়ে দাঁড় করাতে তিন দফায় প্রায় ১১০০ কর্মীকে ভিআরএস দেওযার পাশাপাশি কয়েক কোটি টাকা খরচ করে প্রায় দেড়শো নতুন বাস কেনা হয়। এই পরিস্থিতিতে সংস্থার কোচবিহারের বাস টার্মিনাসে ছয় মাসের বেশি সময় ধরে নতুন বাস পড়ে থাকায় প্রশ্ন উঠেছে, নতুন বাসগুলি যদি চালানোই না হয় তা হলে কোটি কোটি টাকা খরচ করে এগুলি কেনা হল কেন?