গাঁজার ঠেকের প্রতিবাদ করায় ‘খুনের হুমকি’

226

বর্ধমান: গৃহস্থের বাড়ির পিছনে গাঁজা গাছ লাগিয়ে সেখানেই প্রতিদিন গাঁজা ও মদের ঠেক বসাত একদল যুবক। এই ঘটনার বিষয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ জানানোয় প্রতিবাদী গৃহস্থ পরিবারের মহিলাদের খুনের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠল নেশায় আসক্ত ওই যুবকদের বিরুদ্ধে। ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে শহর বর্ধমানের শাঁখারিপুকুর জবরদখল কলোনী এলাকায়। বর্ধমান থানার পুলিশ প্রতিবাদী মহিলা বিদিশা গোস্বামীর দায়ের করা অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করার পাশাপাশি অভিযুক্তদের পাকড়াও করার তৎপরতা শুরু করেছে।

বর্ধমান পুরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের শাঁখারিপুকুর জবরদখল কলোনিতে বসবাস করেন বিদিশা গোস্বামী। পুলিশকে তিনি জানিয়েছেন, বাড়িতে তিনি ও তাঁর বৃদ্ধা মা সহ ছয় জন মহিলা থাকেন। অভিযোগ, তাঁর বাড়ির পিছনের ফাঁকা জায়গায় গাঁজা গাছ লাগিয়েছে সুমন দাস, গোপাল দাস ও প্রসেনজিৎ ভৌমিক সহ পাড়ার কিছু যুবক। তারাই ওই জায়গাটিতে গাঁজা ও মদের ঠেক বানিয়ে ফেলেছে। সেখানেই যুবকরা প্রায় প্রতিদিনই দিনদুপুরে গাঁজা ও মদের আসর বসায় বলে অভিযোগ।

- Advertisement -

বিদিশা গোস্বামী জানিয়েছেন, তিনি যুবকদের গাঁজা খাওয়ার প্রতিবাদ করে সোমবার বর্ধমান থানার পুলিশকে সবিস্তার জানান। তারপরেই পুলিশ পৌঁছে যায় যুবকরা যেখানে গাঁজার ঠেক বসাত সেই জায়গায়। পুলিশ সমস্ত গাঁজা গাছ কেটে ফেলে দেওয়ার পাশাপাশি গাছ উপড়ে তুলে নষ্ট করে দেয়।

বিদিশা গোস্বামী জানিয়েছেন, গাঁজা গাছ নষ্ট করে দিয়ে পুলিশ চলে যাওয়ার পরেই নেশায় আসক্ত যুবকরা তাঁর বাড়িতে চড়াও হয়। জানালার কাঁচ ভেঙে দেয়। আপত্তিকর ভাষায় গালিগালাজ করার পাশাপাশি ওই যুবকরা তাঁদের প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেওয়ার পাশাপাশি বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ার ও ধর্ষণের হুমকি দিয়ে গিয়েছে বলে বিদিশা গোস্বামী লিখিত ভাবে অভিযোগে পুলিশকে জানিয়েছেন।

বর্ধমান থানার এক পুলিশ অফিসার বলেন, ‘মহিলার অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু হয়েছে।’ অভিযুক্ত যুবকদের খোঁজ চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এলাকার বিদায়ী কউন্সিলার শঙ্খশুভ্র ঘোষ জানিয়েছেন, কেউ অপকর্ম কিছু করে থাকলে তাকে শাস্তি পেতে হবে। মহিলা পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন। পুলিশ নিশ্চই যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।