আন্তঃজেলা মোটরবাইক চোরাই চক্রের হদিস, গ্রেপ্তার তিন

208

আসানসোল: আন্তঃজেলা মোটরবাইক চোরাই চক্রের হদিস পেল আসানসোল-দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেটের রানিগঞ্জের পাঞ্জাবিমোড় ফাঁড়ির পুলিশ। এই চক্রের তিন পান্ডাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। যার মধ্যে একজন রিসিভার রয়েছে। যে বাকি দু’জনের কাছ থেকে চোরাই মোটরবাইকগুলো কিনে, অন্য জায়গায় বিক্রি করতেন। পাঞ্জাবিমোড় ফাঁড়ির ইনচার্জ সৌমেন বন্দোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে পুলিশ মঙ্গলবার রাতে রানিগঞ্জ থানার গীর্জাপাড়া ও পুরুলিয়া জেলার সাঁতুড়ি থানার মুরুলিয়ায় অভিযান চালিয়ে ১২ টি চোরাই মোটরবাইক উদ্ধার করেছে। ধৃতরা গীর্জাপাড়ার বাদশা খান ও রাজা খান এবং পুরুলিয়ার জাকির শেখ। তাঁরমধ্যে জাকির রাজার শ্যালক বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। বাদশা আপাতত ৫ দিনের রিমান্ডে পাঞ্জাবিমোড় ফাঁড়ির পুলিশ হেফাজতে আছে। বৃহস্পতিবার রাজা ও জাকিরকে আসানসোল আদালতে পাঠিয়ে পুলিশ রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানাবে।

পুলিশ সূত্রে, গত ২১ জুন রানিগঞ্জের আনন্দলোক হাসপাতালের সামনে থেকে একটি মোটরবাইক চুরি যায়। সেই চুরির অভিযোগ পেয়ে রানিগঞ্জ থানার পাঞ্জাবিমোড় ফাঁড়ির পুলিশ তদন্ত করতে নেমে ২৮ জুন গীর্জাপাড়ার বাসিন্দা বাদশা খানকে গ্রেপ্তার করে। তাঁকে রিমান্ডে নিয়ে পুলিশ জানতে পারে, এই চুরির পিছনে একটা বড়চক্র আছে। যাঁরা গত ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে একাধিক বাইক চুরি করেছে৷ বাদশা পুলিশি জেরায় তাঁর দুই সঙ্গী রাজা খান ও জাকির শেখের নাম জানায়। সেইমতো মঙ্গলবার রাতে পুলিশ রানিগঞ্জের গীর্জাপাড়া ও পুরুলিয়ার মুরুলিয়ার অভিযান চালিয়ে রাজা ও জাকিরকে গ্রেপ্তার করে। তাঁদের ডেরা থেকে উদ্ধার করা হয় ১২টি চোরাই মোটরবাইক।

- Advertisement -

পুলিশ জানায়, উদ্ধার হওয়া বাইকগুলির মধ্যে তিনটি রানিগঞ্জ থেকে চুরি হয়েছিল। বাকি গুলি কোথা থেকে চুরি হয়েছে, তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশের ডিসিপি (সেন্ট্রাল) সায়ক দাস বলেন, ধৃত দু’জনকে বৃহস্পতিবার আদালতে তোলা হবে। তাঁদের রিমান্ডে নেওয়া হবে।