বাড়ি কাছাকাছি হলেও তিন বন্ধুর ভোট তিন কেন্দ্রে

63

তপন আইচ, বক্সিরহাট : ওঁরা তিনজনই একে অপরের বন্ধু। একসঙ্গে বক্সিরহাট হাইস্কুলে পড়াশোনা তাঁদের। তিন বন্ধুর মাতৃভাষাও বাংলা। তাঁদের বাড়ি ৫০০ মিটারের মধ্যে হলেও তিনজনের মধ্যে একটি বড় পার্থক্য। তিনজনই অসম-বাংলা সীমানার তিনটি আলাদা বিধানসভা কেন্দ্রের ভোটার।

কোচবিহার জেলার বক্সিরহাট থানার ভানুকুমারী-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের পুরান পোস্ট অফিসপাড়ার বাসিন্দা সঞ্জীব পালচৌধুরী। তাঁরই প্রতিবেশী তথা বন্ধু অসমের ধুবড়ি জেলার দ্বিতীয়খণ্ড ছাগলিয়ার বাসিন্দা মিলন বর্মন ও ধুবড়ি জেলার ছোটগুমা গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দা নিখিল দেবগুপ্ত। অসমের তিনিয়ালিতে সঞ্জীব ও মিলনের ওষুধের দোকান। সেখানেই নিখিলবাবুর স্টেশনারি দোকান রয়েছে। সকাল হতে না হতেই তিন বন্ধু একে অপরকে সুপ্রভাত জানিয়ে দোকানে বসেন। রাত দশটা পর্যন্ত চলে দোকানে কাজ। বাড়ি ফেরা একসঙ্গে। কাজের অবসরে চলে জমিয়ে আড্ডা। সুখ-দুঃখের কথা থেকে শুরু করে দেশের হালহকিকত, সবটাই যেন তাঁদের আড্ডার অংশ।

- Advertisement -

সঞ্জীববাবু বলেন, দক্ষিণ ভানুকুমারী বিদ্যাসাগর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট দেব। নিখিলবাবু ভোট দেবেন গোঁসাইগাঁও বিধানসভা কেন্দ্রের শেষ বুথ ছোটগুমা এমই স্কুলে। অন্যদিকে, মিলনবাবু গোলকগঞ্জ বিধানসভার বাংলা সীমানা লাগোয়া শেষ ভোটগ্রহণ কেন্দ্র ছাগলিয়া-২ এলপি স্কুলে ভোট দেবেন। তাঁরা জানান, ১৯৯৬ থেকে ভোটাধিকার পাওয়ার পর তাঁরা এই তিনটি আলাদা কেন্দ্রে ভোট দিয়ে আসছেন।

অসম-বাংলা সীমানায় অবস্থিত এই তিনটি বুথ পরস্পরের ৫০০ মিটারের মধ্যে অবস্থিত। অসমের গোঁসাইগাঁও এবং গোলকগঞ্জ বিধানসভার ভোটগ্রহণ ৬ এপ্রিল। অন্যদিকে তুফানগঞ্জ বিধানসভার ভোটগ্রহণ ১০ এপ্রিল। দুদিকেই প্রচার তুঙ্গে। দিনরাত এলাকাবাসীদের কানে আসছে মিটিং, মিছিল ও প্রচারের আওয়াজ। সীমানায় চলছে পুলিশের কড়া নজরদারি। অসম-বাংলা সীমানায় জমজমাট ভোটপর্ব উপভোগ করতে ভিড় বাড়ছে দুই এলাকার মানুষের। এলাকায় প্রচারে আসছেন নেতা ও সেলেব্রিটিরা। সবমিলিয়ে যেন উৎসবের আমেজ তৈরি হয়েছে সীমানা এলাকায়।