রায়গঞ্জ গুলিকাণ্ডে শিলং থেকে গ্রেপ্তার মূল অভিযুক্ত সহ তিন

280

রায়গঞ্জ: পুলিশকর্মীর বাড়িতে ঢুকে গুলি চালিয়ে এক মহিলাকে খুন ও দুজনকে জখম করার অভিযোগে নাম জড়ায় এক বিএসএফ কর্মী ও তার পরিবারের বেশ কয়েকজন সদস্যর। ঘটনায় মূল অভিযুক্ত শীতল রায় ওরফে পাপন সহ আরও দুজনকে মেঘালয় থেকে গ্রেপ্তার করেছে। ধৃতদের মধ্যে গোপালকৃষ্ণ বিশ্বাস পেশায় সিভিক ভলান্টিয়ার। এছাড়াও সুপর্না বিশ্বাস পাপন রায়ের স্ত্রী। ধৃতদের আজ রায়গঞ্জ আদালতে পেশ করা হয়। জানা গিয়েছে, ধৃত শীতল রায় এবং তার শ্যালক গোপালকৃষ্ণ বিশ্বাসকে ১৪ দিনের পুলিশি হেপাজত এবং শীতলের স্ত্রী সুপর্নাকে জেল হেপাজতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে রায়গঞ্জ থানার দেবীনগর এলাকায় পুলিশকর্মী সুজয়কৃষ্ণ মজুমদার এবং তার দুই বোন দেবী ও রূপা গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন। ঘটনাস্থলেই দেবী সান্যালের মৃত্যু হয়। সুজয় ও রূপার অবস্থা এখনও সংকটজনক। একজনকে মালদা মেডিকেল কলেজ এবং সুজয়বাবুকে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ঘটনার পরদিন মূল অভিযুক্ত শীতল রায়ের দিদি জয়শ্রী দাসকে গ্রেপ্তার করে। এই নিয়ে এই ঘটনায় মোট চারজন গ্রেপ্তার হলেন।

- Advertisement -

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিল মূল অভিযুক্ত শীতল রায় সহ পরিবারের অন্য সদস্যরা। ঘটনার পাঁচদিনের মাথায় মূল অভিযুক্ত গ্রেপ্তার হওয়ায় স্বস্তিতে পুলিশ। পুলিশের কাছে খবর ছিল, মেঘালয়ের শিলংয়ে গা ঢাকা দিয়েছে অভিযুক্তরা। এরপর সেখানে হানা দিয়ে গুয়াহাটি ও শিলংয়ের মাঝে রাস্তার ধারে একটি ধাবা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে শনিবার সকালে রায়গঞ্জে নিয়ে আসা হয়।