পুজোর পরই বক্সায় আসছে তিনটি বাঘ

ভাস্কর শর্মা, আলিপুরদুয়ার : সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে পুজোর পরেই বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পে আসছে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার। বাঘ আনার জন্য ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটি প্রায় ১২ কোটি টাকা মঞ্জুর করেছে। অনেকদিন ধরেই বাঘ আনার কথা শোনা গেলেও তা নানা জটিলতায় থমকে ছিল। কিন্তু এবার বাঘ আনার জন্য কেন্দ্রীয় সংস্থা অর্থমঞ্জুর করায় বাঘ আনার বিষয়ে সিলমোহর পড়ল বলে মনে করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে মোট তিনটি বাঘ বক্সায় আনা হবে বলে বনকর্তারা জানিয়েছেন। রাজ্যের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, বাঘ আনার জন্য কেন্দ্রীয় সংস্থা অর্থমঞ্জুর করেছে। আমরা এনটিসিএর গাইডলাইন মেনেই বক্সায় বাঘ আনার বিষয়ে কাজ শুরু করেছি।

বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্প সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রায় ৭৬০ বর্গকিমিজুড়ে বিস্তৃত এই বনাঞ্চল। গত ২০ বছরে এই বনাঞ্চলে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের প্রত্যক্ষ উপস্থিতির তেমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। এমনকি বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের জঙ্গলে যেসব সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে তাতেও বাঘের কোনও ছবি ধরা পড়েনি। তবুও প্রতিবছর এখানে বাঘ শুমারি করে বন দপ্তর। ট্র‌্যাপ ক্যামেরা সহ কোথাও বাঘের অস্তিত্ব না মেলায় অনেক সময় বক্সা থেকে ব্যাঘ্র প্রকল্প তুলে দেওয়ার দাবি করেছেন অনেকে। কিন্তু রাজ্য বন দপ্তরের কর্তারা কোনও প্রমাণ দিতে না পারলেও এই জঙ্গলে বাঘ আছে বলে দাবি করে চলছেন। তবে এখানকার জঙ্গলে বাঘের দেখা না মেলায় বাইরের রাজ্য থেকে বাঘ আনার পরিকল্পনা নেয় বন দপ্তর। এর জন্য অসম থেকে বাঘ এনে বক্সায় ছাড়া হবে বলে সিদ্ধান্ত হয়।

- Advertisement -

ইতিমধ্যেই বক্সাতে বাঘের উপযোগী করে তোলার জন্য তৃণভোজীর সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। তবে বক্সাতে বাঘ ছাড়ার সব প্রস্তুতি নিলেও মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বনবস্তি। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্প এলাকায় অন্তত ৩৫টি বনবস্তি আছে। বাঘ ছাড়ার আগে এনটিসিএর গাইডলাইন অনুযায়ী বনবস্তিবাসীদের অন্যত্র পুনর্বাসন দেওয়ার কথা। বন দপ্তর সূত্রে খবর, তারা কয়েকবছর আগেই বনবস্তিবাসীদের সরে যাওয়ার জন্য ক্ষতিপূরণ ঘোষণা করেছে। পরিবারপিছু জমি ও ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা জানিয়েছে। কিন্তু এ বিষয়ে বনবস্তির বাসিন্দাদের তেমন কোনও উৎসাহ দেখা যায়নি। তাই বাঘ ছাড়া যখন শুধুমাত্র সময়ে অপেক্ষা সেখানে এখনও বক্সায় বনবস্তিগুলিই চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বন দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, এনটিসিএ যখন সবুজ সংকেত দিয়েছে তখন আর বক্সায় বাঘ ছাড়তে দেরি করতে চায় না বন দপ্তর। বনবস্তি থাকলেও এবার বাঘ ছাড়া হবে। অসম থেকে ছয়টি বাঘ বক্সায় আনার কথা জানিয়েছে এনটিসিএ। কিন্তু বন দপ্তর একসঙ্গে এতগুলো বাঘ না এনে তিনটি বাঘ প্রথমে বক্সায় ছাড়তে চায়। তিনটির রেজাল্ট দেখেই বাকিগুলিও ধাপে ধাপে ছাড়া হবে বলে বনকর্তারা জানিয়েছেন। এদিকে অবশেষে বক্সায় বাঘ আনার খবরে খুশি বিভিন্ন বন্যপ্রাণী সংগঠন থেকে পরিবেশপ্রেমীরা।