পথবাতির মুখ ঘোরানো নিয়ে বিবাদে গুলিবিদ্ধ তিন

228
প্রতীকী ছবি

মুর্শিদাবাদ: রাস্তায় পথবাতির মুখ ঘোরানো নিয়ে বিবাদের জেরে গুলিবিদ্ধ হলেন তিন ব্যক্তি। শুক্রবার সন্ধ্য়ায় ঘটনাটি ঘটেছে মুর্শিদাবাদের ইসলামপুর থানার টেঁকারাইপুর নতুনপাড়া তেমাথা মোড়ে। গুলিবিদ্ধরা বর্তমানে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। স্থানীয় সূত্রের খবর, সম্প্রতি পঞ্চায়েতের উদ্যোগে নতুনপাড়া তেমাথা মোড়ে একটি সোলার লাইট বসানো হয়। অভিযোগ, গতকাল সন্ধ্যেবেলায় মাসিদুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক মোটরগ্যারেজ মালিক আলোটি নিজের দোকানের দিকে ঘুরিয়ে নেন।

আলোর অভিমুখ ঘুরিয়ে নেওয়ায় অন্ধকার হয়ে পড়ে জনবহুল মোড়টি। লাইট সরানোর প্রতিবাদ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তা নিয়ে রাত অবধি দুপক্ষের বচসা চলতে থাকে। পরে ইসলামপুর থানার পুলিশ এসে লাইটটিকে আগের অবস্থানে বসানোর নির্দেশ দেয়। সেন্টু শেখ নামে এক গ্রামবাসী বলেন, মোড়টি দুর্ঘটনাপ্রবণ হওয়ার জন্য সম্প্রতি সেখানে পথবাতিটি বসানো হয়েছিল। পুলিশ এসে আমাদেরকে রাতের অন্ধকারে আলোটি ঘুরিয়ে নিতে বললেও আমরা বলি সকালে দিনের আলোতে লাইটটি ঘুরিয়ে নেব। পুলিশ চলে যাবার কিছুক্ষণ পর আমরা একটি চায়ের দোকানে বসে ফুটবল খেলা দেখছিলাম। হঠাৎ গুলির শব্দ শুনতে পাই। তখন দেখি মিজান শেখ, পিয়ারুল শেখ এবং রাকিবুল ইসলাম নামে তিনজন যুবক রাস্তায় গুলিবিদ্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে।

- Advertisement -

আহতদের দ্রুত ইসলামপুর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর সকলকে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করে দেওয়া হয়। হাসপাতাল সূত্রের খবর, সকলের দেহে ছররা গুলির আঘাত রয়েছে। মিজান ও রাকিবুলের আঘাত গুরুতর। গ্রামবাসীদের একাংশ জানান, পুলিশ চলে যাওয়ার পর গ্রামের বাসিন্দারা গ্যারাজ মালিক মাসিদুলের বাড়ির সামনের রাস্তা দিয়ে নিজেদের বাড়ি ফিরছিলেন। সেই সময় অতর্কিতে ছাদের উপর থেকে মাসিদুল, তাঁর বাবা সফিকুল ইসলাম ও দাদা হাসান আলি এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানান, আমরা ইতিমধ্যে সফিকুলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছি। বাকি দুই অভিযুক্ত পলাতক রয়েছে।