বিজেপি মহিলা মোর্চার ধর্না কর্মসূচির মঞ্চ ভেঙে ফেলার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

200

চাঁচল: বিজেপি মহিলা মোর্চার ধর্না কর্মসূচির মঞ্চ ভেঙে ফেলার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনায় উত্তপ্ত চাঁচল। বৃহস্পতিবার মহিলাদের সুরক্ষা নিয়ে চাঁচল কলেজ মাঠে একটি ধর্না মঞ্চ তৈরি করা হয়। বিজেপির অভিযোগ, মহিলা মোর্চার ধর্না কর্মসূচির দু’ঘন্টা আগেই তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা মঞ্চ ভেঙে ফেলে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

বৃহস্পতিবার চাঁচল মহকুমা শাসকের দপ্তরের সামনে বিজেপি মহিলা মোর্চার ধর্না কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেন জেলা মহিলা মোর্চার সভানেত্রী সুতপা মুখোপাধ্যায়, জেলা মহিলা মোর্চার সম্পাদিকা অনিন্দিতা প্রামাণিক। এদিন জেলা মহিলা মোর্চার তরফে চাঁচল বিধানসভা এলাকার শতাধিক মহিলা মোর্চার কর্মীদের নিয়ে কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। তবে কর্মসূচির শুরু হওয়ার আগেই মঞ্চ ভাঙার অভিযোগ ওঠে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় চাঁচল থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী।

- Advertisement -

বিজেপি জেলা মহিলা মোর্চার সম্পাদিকা অনিন্দিতা প্রামাণিক বলোন, ‘রাজ‍্যের মহিলারা সুরক্ষিত নয়। এই রাজ‍্যে মহিলাদের নিরাপত্তা নিয়ে কোনও ব‍্যবস্থা নেই। ধর্ষণ থেকে শুরু করে নারী নির্যাতন রাজ‍্যে একাধিক ঘটনা ঘটলেও তার কোনও সুরাহা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। আর তারই প্রতিবাদ করতে মহিলা মোর্চার তরফে ধর্না কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হলে তৃণমূলের কর্মীরা মঞ্চ ভেঙে ফেলছেন।’

জেলা মহিলা মোর্চার সভানেত্রী সুতপা মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘মঞ্চ ভাঙার সঙ্গে কয়েকজন বিজেপি কর্মী আহত হয়েছেন। পুরো ঘটনা দলের ঊদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’ পাশাপাশি ঘটনায় পুলিশে অভিযোগ জানানো হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। রাজ্য যুব মোর্চার সহ সভাপতি অভিষেক সিংহানিয়া বলেন, ‘গণতান্ত্রিক দেশে সবারই সভা, সমিতি করার অধিকার রয়েছে। সারা রাজ‍্যের পাশাপাশি চাঁচল বিধানসভাতেও তৃণমূল কংগ্রেসের অস্তিত্ব শেষের দিকে। শাসকদলের নেতা কর্মীদের মাথা ঠিক নেই। তাই তারা অসহায় হয়ে মঞ্চ ভাঙছে। তারা চাইছে চাঁচলে বিজেপির কোনও কর্মসূচি না হোক। কিন্তু সেটা কোনওদিনই হবেনা। বিজেপির তরফে আরও বেশি কর্মসূচি চাঁচলে করা হবে।’

মালদা জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক তথা জেলা পরিষদের সদস‍্য সামিউল ইসলাম বলেন, ‘মহিলাদের জন‍্য কন‍্যাশ‍্রী, রূপশ্রী, স্বাস্থ‍্যসাথী কত কি করছে তৃণমূল সরকার। সেটাকি বিজেপির চোখে পড়ে না। তারা কি অন্ধ?’ সামিউলবাবু সাফ বলেন, ‘মঞ্চ ভাঙার ঘটনাটি পরিকল্পিতভাবে সাজানো। বিজেপি ঘটনা সাজিয়ে নিজেদের শিরোনামে আনতে চাইছে। পুলিশ তদন্ত করুক। তাহলে আসল রহস্য উদঘাটন হয়ে যাবে।’