তৃণমূল–বিজেপি সংঘর্ষে জখম ৭

104

রামপুরহাট: মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পরও রাজনৈতিক হিংসা অব্যাহত বীরভূমে। বৃহস্পতিবার ফের তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষে জখম হলেন উভয় পক্ষের ৭ জন। তাঁদের রামপুরহাট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

বীরভূমের রামপুরহাট বিধানসভার তিলাই গ্রামে তৃণমূল প্রার্থী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় পেয়েছেন ২২২ টি ভোট। অন্যদিকে, বিজেপি প্রার্থী শুভাশিস চৌধুরী পেয়েছেন ২০৬টি ভোট। ফল বের হওয়ার পর থেকেই গ্রামে চাপা উত্তেজনা রয়েছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, সন্ধ্যা হলেই তৃণমূল কর্মীরা বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের শাসিয়ে যান। এমনকি বিজেপি সমর্থক বলে পরিচিত হওয়ায় এলাকায় পানীয় জলের অকেজো টিউবওয়েলও সংস্কার করা হয়নি। ফলে পানীয় জলের সংকটে ভুগছেন গ্রামের মানুষ। স্থানীয়রা জানান, এদিন সকালে এক কিশোর শৌচকর্মের জন্য মাঠে গেলে তৃণমূলের লোকজন তাকে মারধর করে। এরপরই দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে দু’পক্ষের ৭ জন জখম হন। খবর পেয়ে রামপুরহাট থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে উভয় পক্ষের চারজনকে আটক করে।

- Advertisement -

বিজেপি সমর্থক অন্যবালা দাস জানান, এক কিশোর শৌচকর্মের জন্য মাঠে গেলে তৃণমূলের লোকজন তার মাথায় আঘাত করে। এরপরই গ্রামের লোকজন সেখানে পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে। তৃণমূলের লোকজন দলের বেশ কয়েজনকে মাটিতে ফেলে মারধর করে বলে অভিযোগ। এক বৃদ্ধও আক্রান্ত হন। ভয়ে বাড়ির পুরুষরা ঘরছাড়া হয়েছেন। অন্যদিকে রুমেলা বিবি নামে এক মহিলার অভিযোগ, তাঁর স্বামীকে মেরে চোখ নষ্ট করে দিয়েছে বিজেপির লোকজন। ঘটনার পর গ্রামে নিরাপত্তার দাবিতে রামপুরহাট মহকুমা শাসকের অফিসে হাজির হন বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বিজেপি প্রার্থী শুভাশিস চৌধুরী। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন মহকুমা শাসক জগন্নাথ ভড়। অশান্তি থামাতে গ্রামে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ।