ভোটের প্রচার নিয়ে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ, এলাকায় উত্তেজনা

75

বর্ধমান: ভোটের প্রচার নিয়ে সংঘর্ষে জড়ালেন তৃণমূল ও বিজেপি কর্মীরা। শনিবার ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের মেমারি বিধানসভার কুচুট অঞ্চলের নওহাটি গ্রামে। দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। বেশ কয়েকটি বাড়ি ও বাইক ভাঙচুর করা হয়েছে। খবর পেয়ে এসডিপিও (বর্ধমান দক্ষিণ) আমিনুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শুরু হয়েছে ধরপাকড়। উত্তেজনা থাকায় এলাকায় পুলিশের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় বাহিনী টহল দিচ্ছে। নতুন করে আর যাতে অশান্তি না ছড়ায় তারজন্য ওই এলাকায় বাহিনী মোতায়েন রাখা হয়েছে।

এদিন বেলা ১২টা নাগাদ মেমারি বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী ভীষ্মদেব ভট্টাচার্য নওহাটি গ্রামে প্রচারে যান। অভিযোগ, তখন ওই এলাকার কিছু তৃণমূল কর্মী-সমর্থক বিজেপি প্রার্থীকে প্রচারে বাধা দেন। তা নিয়ে দুই পক্ষের প্রথমে বচসা, পরে হাতাহাতি হয়। ওই সময়ে তৃণমূলের লোকজন বিজেপির প্রচারের গাড়িতে ভাঙচুরও চালায় বলে অভিযোগ ভীষ্মদেব ভট্টাচার্যর। তখনকার মতো বিজেপি নেতা, কর্মী ও প্রার্থী ওই এলাকা থেকে চলে যান। ঘণ্টা দু’য়েক পর বিজেপি প্রার্থী ভীষ্মদেব ভট্টাচার্য প্রচুর সংখ্যক দলীয় কর্মী -সমর্থক নিয়ে ফের নওহাটি গ্রামে ভোটের প্রচারে যান। এতে নতুন করে উত্তেজনা তৈরি হয়।

- Advertisement -

তৃণমূল কংগ্রেস নেতা মহম্মদ ইসমাইলের অভিযোগ, এদিন বিজেপি প্রচারের জন্য কোনও অনুমোদন নেয়নি। তা সত্ত্বেও প্রচারের নামে বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা নওহাটি এলাকায় বাড়ি বাড়ি ঢুকে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালান। একাধিক বাইক ও চারচাকা গাড়ি ভেঙে দিয়েছেন বিজেপি কর্মীরা। যদিও বিজেপির প্রার্থী ভীষ্মদেব ভট্টাচার্য তৃণমূলের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাঁর পালটা অভিযোগ, তৃণমূল পরিকল্পিতভাবে তাঁদের প্রচার কর্মসূচিতে আক্রমণ চালিয়েছে। হামলায় ৬-৭ বিজেপি কর্মী আহত হয়েছেন। বিজেপি কর্মীরা তৃণমূলের হামলা প্রতিরোধ করেছেন। গোটা ঘটনার জন্য তৃণমূলকেই দায়ী করেছেন বিজেপি প্রার্থী।