জেলা কমিটি গঠনের পর তৃণমূলের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

344

মুর্শিদাবাদ: তৃণমূল কংগ্রেসের মুর্শিদাবাদ জেলা কমিটি নতুন করে গঠন হওয়ার ২৪ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই দলের অন্তর্দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসল। তৃণমূল সর্বোচ্চ নেতৃত্বে নির্দেশে মুর্শিদাবাদ জেলাকে সাংগঠনিকভাবে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। জঙ্গিপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন জঙ্গিপুর থেকে নির্বাচিত তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ খলিলুর রহমান। সোমবার খলিলুর রহমানকে আইএনটিটিইউসি নিয়ন্ত্রিত পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য বিদ্যুৎ পর্ষদ এমপ্লয়িজ অ্যান্ড ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের তরফে বিদ্যুৎ দপ্তরের রঘুনাথগঞ্জ ডিভিশনাল অফিসে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। তবে এই সংবর্ধনা সভায় উপস্থিত ছিলেন না তৃণমূলের জঙ্গিপুর সাংগঠনিক জেলার নবনির্বাচিত আইএনটিটিইউসি সভাপতি তথা সামশেরগঞ্জের তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক আমিরুল ইসলাম। সংবর্ধনা সভায় খলিলুর রহমানের সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের বিদ্যুৎ দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী আখরুজ্জামান সহ জঙ্গিপুর সাংগঠনিক জেলার অন্য তৃণমূল নেতারা। ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে আমিরুলকে তৃণমূল সামশেরগঞ্জ আসন থেকে প্রার্থী করলেও ওই আসনে কংগ্রেস প্রার্থীর মৃত্যুর পর করোনা অতিমারির কারণে সেখানে এখন ভোটগ্রহণ স্থগিত রয়েছে।

প্রসঙ্গত, মুর্শিদাবাদ জেলা সাংগঠনিকভাবে বিভক্ত হওয়ার আগে থেকেই খলিলুর রহমানের সঙ্গে আমিরুলের সম্পর্কের শৈত্য জেলার রাজনীতিতে সুবিদিত। বিভিন্ন রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে একাধিকবার খলিলুর রহমানের ভাইপো আনারুল হকের সঙ্গে বিবাদে জড়িয়েছেন আমিরুল। এই সংবর্ধনা সভাটি পূর্ব নির্ধারিত ছিল বলে দাবি করেছেন খলিলুর রহমান। তিনি জানান, এই সভাটি ৯ অগাস্ট হওয়ার কথা ছিল। তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন নবনির্বাচিত আইএনটিটিইউসি সভাপতি কেন আসেননি। গোটা বিষয়টি নিয়ে মুখে কুলুপ এঁটেছেন আমিরুল। তবে তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানানো হয়েছে, এদিনের অনুষ্ঠানের জন্য তাঁকে কেউ আমন্ত্রণ জানায়নি।

- Advertisement -