তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে আহত ৮

236

বক্সিরহাট: তোলাবাজির অভিযোগে দুই অঞ্চল সভাপতিকে শোকজ করা নিয়ে গোষ্ঠী সংঘর্ষে আহত হলেন ৮ তৃণমূল কর্মী। তুফানগঞ্জ ২ ব্লকের ফলিমারির ঘটনা।

তৃণমূলের তুফানগঞ্জ ২ ব্লক সভাপতি ধনেশ্বর বর্মন জানান, বুধবার বক্সিরহাট গার্লস স্কুলে তাঁদের একটি কর্মীসভা হয়। সেই সভায় জেলা সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়-এর উপস্থিতিতে দলের ভানুকুমারি ২-এর অঞ্চল সভাপতি সুজিত ঘোষ এবং ফলিমারির অঞ্চল সভাপতি গোকুল সাহাকে দলের নাম ভাঙিয়ে তোলাবাজি ও দল বিরোধী কার্যকলাপের অভিযোগে শোকজ করা হয়। জানা গিয়েছে, এদিন ফলিমারিতে আরও ১৪ জন দলীয় পদাধিকারীকে শোকজ করা হয় এবং প্রতীক সূত্রধর নামে অঞ্চল কমিটির সাধারণ সম্পাদককে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। ধনেশ্বরবাবু জানান, এরপরই রাতে তিনি খবর পান ফলিমারি অঞ্চলে গোকুল সাহার লোকজন সভা ফেরত স্থানীয় কয়েকজন তৃণমূল কর্মীর ওপর আক্রমণ চালায়। ঘটনায় ৮ তৃণমূল কর্মী আহত হন। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বৃহস্পতিবার আহত তৃণমূল কর্মীদের পরিবারের লোকেরা বক্সিরহাট থানায় ৩০ জনের নামে একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

- Advertisement -

এই বিষয়ে অভিযুক্ত তৃণমূলের ফলিমারি অঞ্চল কমিটির সভাপতি গোকুল সাহাকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান, গতকাল তিনি বাড়ি ছিলেন না। ওই সভাতেও তাঁকে ডাকা হয়নি। এদিন বাড়ি ফিরে এসে জানতে পারেন গতকাল সভা ফেরত কয়েকজন তৃণমূল কর্মী এলাকায় এসে বোমাবাজি করে। শোকজের বিষয়ে গোকুল সাহা এবং সুজিত ঘোষ দু’জনেই জানান, তাঁরা কেউই চিঠি পাননি। পাশাপাশি ব্লক সভাপতি ধনেশ্বর বর্মন-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করে জানান, ব্লক সভাপতি তাঁদের এলাকায় বালি পাথর, কয়লা ও গোরু পাচারের সিন্ডিকেটরাজ কায়েম করেছিল। কিন্তু তাতে তাঁরা সায় না দেওয়ায় ব্লক সভাপতি নিজের লোককে সেখানে বসিয়ে তোলাবাজি করার জন্যই তাঁদের সরিয়ে দেওয়ার চক্রান্ত করেন। সুজিতবাবুর বক্তব্য, ব্লক সভাপতির এই সিন্ডিকেটের বিষয়টি দু-একদিনের মধ্যেই তিনি তথ্য দিয়ে প্রমাণ করবেন। বক্সিরহাট থানার ওসি শুভজিৎ ঝা জানিয়েছেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। ওসি বক্সিরহাটের বাইরে থাকায় এই নিয়ে কোনও অভিযোগ জমা পড়েছে কিনা তা তার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।