প্রধানমন্ত্রীকে ‘বেইমান’ বলে আক্রমণ অনুব্রতর

195

বর্ধমান: ‘প্রধানমন্ত্রী বেইমান। কোনও কথা রাখেননি।’ সোমবার পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রাম ২ ব্লকের গেঁড়াই ফুটবল মাঠে আয়োজিত সভা থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এভাবেই আক্রমণ করলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। পাশাপাশি, এদিন বিজেপি নেত্রী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র কটাক্ষ করেন অনুব্রত। তাঁর এমন মন্তব্য নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। প্রতিবাদে সরব হয়েছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

অনুব্রত মণ্ডল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বেইমান। কোনও কথা রাখেননি। এখন তিনি বলছেন যে বাংলাকে সোনার বাংলা করব। তাহলে গুজরাতকে কেন সোনার গুজরাত করতে পারলেন না?’

- Advertisement -

নিজের দলের নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে অনুব্রত বলেন, ‘মানুষকে পরিষেবা দিন। কাউকে খ্যাক খ্যাক করবেন না। বিজেপি বলছে ওরা নাকি ২০০ সিট পাবে। কি করে ওরা পাবে! কৃষকের জন্য, দিনমজুরের জন্য, বেকারের জন্য কি করেছে ওরা। বাংলার জন্যও কিছুই করেনি। ওরা রবীন্দ্রনাথকে সম্মান করে না। রবীন্দ্রনাথকে ওরা বলে বহিরাগত। আবার বলে রবীন্দ্রনাথের জন্ম শান্তিনিকেতনে।’

কেন্দ্রের লাগু করা কৃষি আইন নিয়ে অনুব্রত বলেন, ‘দিল্লিতে এখন মাইনাস ডিগ্রি তাপমাত্রা। কৃষি আইন প্রত্যাহারের দাবিতে হাজার হাজার চাষি সেখানে ঠাণ্ডায় পড়ে আছেন। মোদির সেই দিকে চোখ নেই। অথচ মমতাকে হিংসা করছেন মোদি। একের পর এক সব বিক্রি করে দিচ্ছে মোদি সরকার। ট্রেন, কয়লাখনি সব বিক্রি করছে। লকডাউনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানুষের জন্য চাল ফ্রি করে দিলেন। আর কেন্দ্রীয় সরকার মাত্র তিন মাস চাল দিল। কিন্তু মমতা তা করেননি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জুন মাস পর্যন্ত চাল দেওয়ার কথা ঘোষণা করে দেন।’

অনুব্রতর দাবি, ‘স্বাস্থ্যসাথী কার্ড নিয়ে বিদেশিরাও অবাক হচ্ছেন। মমতা সবাইকে কার্ড দিচ্ছেন। মোদি তাঁর হাতে থাকা ইডি, সিবিআই লেলিয়ে দিচ্ছেন। তা লেলিয়ে দেবে দাও। আমরা জেল খাটব তবু দল ছাড়ব না। অনেক নেতা দল ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। তবে তাতে তৃণমূল কংগ্রেসের কিছুই হবে না। কারণ মমতা মানুষের হয়ে কাজ করেছেন। মমতা চলে গেলে সব শেষ হয়ে যাবে। বাংলাটা অন্ধকার হয়ে যাবে। বাংলার উন্নয়ন বন্ধ হয়ে যাবে। বিদেশের মানুষজন বলছেন, এমন মুখ্যমন্ত্রী পাওয়া যাবে না। এবারের বিধানসভা নির্বাচন তৃণমূল কংগ্রেস ২২০ থেকে ২৩০টি আসন পাবে বলে এদিনও দাবি করেন অনুব্রত।

এদিকে, এদিনও ‘মিম’ পার্টিকে তীব্র আক্রমণ করেন অনুব্রত মণ্ডল। তিনি বলেন, ‘মিম বিজেপির দালাল। তবে হায়দরাবাদ থেকে বাংলায় এসে কিছু করতে পারবে না। ওদের গোহারা হারাবেন বলে এদিন চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন অনুব্রত। একইসঙ্গে নন্দীগ্রামে মমতার প্রার্থী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা নিয়ে অনুব্রত বলেন, ‘কারও হিম্মত থাকলে ওখানে দাঁড়াক।’ এবিষয়ে শুভেন্দুর নাম না করে কড়া হুঁশিয়ারিও দেন কেষ্ট।

অনুব্রতর বক্তব্য প্রসঙ্গে জেলা বিজেপি সভাপতি সন্দিপ নন্দী বলেন, ‘তৃণমূলের নেতারা এখন দিশেহারা। তাই এইসব অবান্তর কথাবার্তা বলে যাচ্ছেন। মহিলাদের নিয়েও কটুক্তি করতে ছাড়ছেন না। তবে সবই ফাঁকা আওয়াজ। এবারের বিধানসভা ভোটে ওরা যোগ্য জবাব পেয়ে যাবে।’